logo
  • ঢাকা শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬

সাড়ে তিন হাজার ট্রেন যাত্রীর নিরাপত্তায় মাত্র দু’জন কনস্টেবল

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি, আরটিভি অনলাইন
|  ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০:৪৩
ট্রেন মোটরসাইকেল ফ্লাটফরম
ছবি: সংগৃহীত
যাত্রী নিরাপত্তায় বেহাল অবস্থা ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনে। স্টেশনের  জিআরপি ফাঁড়িতে লোকবল সংকটে অপরাধীদের দৌরাত্ম বেড়েই চলছে স্টেশনটিতে। এক প্লাটফরমে যাত্রী নিরাপত্তায় দায়িত্ব পালন করছেন মাত্র একজন কনস্টেবল। তাছাড়া অচল রয়েছে স্টেশনের সিসি টিভি ক্যামেরা। প্লাটফরমে নেই পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা। এমনি অবস্থাতেই প্রতিদিন হাজার-হাজার যাত্রী এই স্টেশন থেকে বিভিন্ন গন্তব্যে যাতায়ত করছে। ১৫-২০টি আন্তঃনগর ও মেইল ট্রেনে বিভিন্ন দিকে এই স্টেশন থেকে যাতাযাত করে তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার যাত্রী।

জানা যায়, প্রতিদিন বিভিন্ন পথে চলাচলকারী ১৫-২০টি আন্তঃনগর ও মেইল ট্রেন যাত্রাবিরতি করে এই স্টেশনে। এসব ট্রেনে ভ্রমণ করেন কম করে হলেও হাজার তিনেক যাত্রী। প্রতিটি ট্রেনেই ভিড় ঠেলে যাত্রীদের উঠতে হয়। আর এই সুযোগই কাজে লাগাচ্ছে অপরাধীরা। পকেট হাতড়ে বের করে নিচ্ছে মোবাইল-মানিবেগ। ব্যাগ কেটে নিয়ে যাচ্ছে নানা মালামাল। শহরের পূর্ব পাইকপাড়ার সাদমান সাকিব ভিড় ঠেলে ট্রেনে উঠেই দেখেন পকেটে মোবাইল নেই।

গেলো ২৫ শে জানুয়ারির ঘটনা এটি। ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ঢাকা যেতে আন্তঃনগর জয়ন্তীকা ট্রেনে উঠেছিলেন তিনি। ট্রেনে উঠার মুহূর্তেই তার পকেট থেকে মোবাইলটি বের করে নেয়া হয়। মোবাইলটির দাম সাড়ে ২৩ হাজার টাকা বলে জানান সাদমান। শুধু সাদমান নয়, এমন ঘটনার শিকার হচ্ছেন প্রতিদিনই কোনও না কোনও যাত্রী।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনটি শিকার ধরার জায়গা হয়ে উঠেছে অপরাধীদের। আর এজন্য স্টেশনের বেহাল নিরাপত্তা ব্যবস্থাকেই দায়ী করছেন যাত্রীরা। তবে নিরাপত্তা দেখবালের দায়িত্ব যাদের তাদের অবস্থা গড়ের মাঠ। স্টেশনের দুই নম্বর প্লাটফরমে জিআরপি পুলিশ ফাঁড়ি। নিয়মানুযায়ী এখানে থাকার কথা ইনচার্জ হিসেবে একজন এসআই,  একজন এএসআই, একজন এটিএসআই ও ১৪ জন কনস্টেবল।  কিন্তু সেখানে এখন সব মিলিয়ে লোকবল আছে ১১ জন। তিন বছর আগে এই ফাঁড়িতে কর্মরত ছিলেন ২২ কনস্টেবল।

এখন এই সংখ্যা নয়জনে দাঁড়িয়েছে। ক’দিন আগে ১০ জন থাকলেও সম্প্রতি একজন বদলি হয়ে গেছেন রাজশাহীতে। এটিএসআই পদও শূন্য হয়েছে সম্প্রতি। বর্তমানে থাকা ১১ লোকবলের মধ্যে দুই কনস্টেবলের ডিউটি রয়েছে আবার আশুগঞ্জে। বাকি সাতজনের মধ্যে চার কনস্টেবল পালাক্রমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া স্টেশনের দুই প্লাটফরমে ২৪ ঘণ্টা ডিউটি করেন। সেই হিসেবে এক প্লাটফরমের নিরাপত্তা দায়িত্ব এক কনস্টেবলের ওপর। ফাঁড়ির এক কর্মকর্তা বলেন, ট্রেনে যদি ২০ কামড়া হয় তাহলে ৮০ দরজা।

৮০ দরজায় নজর রাখা এক কনস্টেবলের পক্ষে কঠিন। পুরো গাড়ির এমাথা-ওমাথা কাভার করা তার পক্ষে কতোটুকু সম্ভব। মেস ম্যানেজার, অফিসের দায়িত্ব পালন, ডাক নিয়ে যাওয়া, কোথাও কোনও ঘটনা ঘটলে যাওয়ার দায়িত্ব পালন করতে হয় বাদবাকি ৫-৭ জনকে। এছাড়া ছুটিছাটা ও শারীরিক অসুস্থতায় নিয়মিতই ২-১ জন থাকছেন ডিউটির বাইরে। একজন কনস্টেবল ডিউটি শেষে ছয় ঘণ্টা সময় পাচ্ছেন বিশ্রামের।  স্টেশনের ভিড়, অপরাধীদের দৌরাত্ম বিবেচনায় বলতে গেলে নামমাত্র দায়িত্ব পালন করতে পারছে এখানকার জিআরপি ফাঁড়ি পুলিশ।

তবে ফাঁড়ি ইনচার্জ মো. মোজাম্মেল খান বলেন, সীমিত লোকবল দিয়ে যাত্রীদের নিরাপত্তা বিধানের চেষ্টা করছেন তারা। ডিউটি না থাকলেও তারা সবাই ডিউটি করছেন। ট্রেন আসলে প্লাটফরমে গিয়ে ট্রেনের দরজার পাশে দাঁড়াচ্ছেন। আসামি ধরছেন, চালান দিচ্ছেন। মালামাল উদ্ধার করছেন। সব কাজই করছেন তারা। এর মধ্যে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটে দাবি করে তিনি বলেন, প্রচণ্ড ভিড়ের মধ্যে চুরি ছিনতাইয়ের মতো ঘটনা ঘটছে। এক্ষেত্রে যাত্রীদেরও সচেতন থাকতে হবে।

এই স্টেশনে গেলো ছয় মাসে বিভিন্ন ধরনের অপরাধে চারটি মামলা হয় আখাউড়া জিআরপি থানায়। এছাড়া আরও ৪-৫ ঘটনায় মৌখিক অভিযোগ পাওয়ার কথা জানান ফাঁড়ির এই কর্মকর্তা।

এদিকে স্টেশনের দুই নম্বর প্লাটফরমের সবকটি সিসি টিভি ক্যামেরা অচল। ঢাকার পথে এই প্লাটফরম থেকেই উঠতে হয় যাত্রীদের। আর এখান থেকে ঢাকা গন্তব্যেই যাত্রী হয় সবচেয়ে বেশি। প্লাটফরমটিতে আলোর ব্যবস্থাও পর্যাপ্ত নয়। আর এসব সুযোগই কাজে লাগাচ্ছে অপরাধীরা।

স্টেশনের ভারপ্রাপ্ত মাস্টার মো. শোয়েব আরটিভি অনলাইনকে জানান, তাদের নয়টি সিসি ক্যামেরার মধ্যে সচল আছে সাতটি। দুই নম্বর প্লাটফরমের দুটি ক্যামেরা অচল। এছাড়া প্লাটফরমে মোটরসাইকেলের অবাধ বিচরণও একটা সমস্যা।  তিনি আরও জানান, মোটরসাইকেল আরোহীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না।

সরজমিনে দেখা গেছে প্লাটফরমের ভেতরেই মোটরসাইকেল পার্কিং করা হচ্ছে। যাত্রী ভিড়ের মধ্যে প্লাটফরমে ছুটে চলছে মোটরসাইকেল। এছাড়া টিকিট কালোবাজারীর দৌরাত্ম এ স্টেশনের বড় এক সমস্যা।

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়