logo
  • ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

কোটি টাকা লাভের আশা করছেন কালীগঞ্জের ফুল চাষিরা

ফুল ঝিনাইদহ গাঁধা
ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে কৃষকের ক্ষেতে ফুটেছে গাঁধা ফুল
ফুল ভালোবাসে না এমন কেউ নেই। তাই বছরজুড়েই কম- বেশি চাহিদা থাকে ফুলের। র্বতমানে ফুলের ভরা মৌসুম।  ফুলের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।

১৬ ই ডিসেম্বর  মহান বিজয় দিবসে  ফুলের  ব্যাপক চাহিদা  দেশজুড়ে। দিবসটি উপলক্ষে কোটি টাকা লাভের আশা করছেন ঝিনাইদহের  কালীগঞ্জের  ফুল চাষিরা।

কালীগঞ্জ উপজেলায় ফুল চাষে এবার নীরব বিপ্লব ঘটেছে। কৃষিকাজের  পরিবর্তে ফুল চাষকে পেশা হিসাবে নিয়ে  ভাগ্য পরিবর্তন করেছেন অনেক কৃষক।

কালীগঞ্জ উপজেলার শতাধিক কৃষক এ ফুল চাষের সঙ্গে জড়িত। এখানে উৎপাদিত গাঁদা ফুলের ওপর নির্ভর করতে হয় রাজধানীর শাহবাগের ফুলের  বাজার, সিলেট, চট্টগ্রামসহ দেশের  ফুল ব্যবসায়ীদের। দিন দিন এখানকার ফুলের  চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে ।

ঝিনাইদহ  কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার ছয়  উপজেলার প্রায় ২৫০শ’ হেক্টর জমিতে নানা জাতের ফুল চাষ হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ফুল চাষ হচ্ছে কালীগঞ্জ উপজেলার ফুলপল্লী নামে খ্যাত বালিয়াংগা, এলোচনপুর, কোলা ও নলডাংগাসহ বিভিন্ন গ্রামে। চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ফুল চাষ হয়েছে একশ’ হেক্টর  জমিতে।

বেলেডাংগা গ্রামের ফুল চাষি মোতালেব হোসেন আরটিভি অনলাইনকে বলেন, এক বিঘা জমিতে ফুল চাষ করতে খরচ হয় ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। ভালো দাম পেলে লাভ হয় প্রায় এক লাখ টাকা। এজন্য ফুল চাষের হার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কালীগঞ্জ কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম আরটিভি অনলাইনকে বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত কৃষকদের  ফুল চাষ সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকি। এর ফলে সঠিকভাবে ফুল চাষ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা।

কালীগঞ্জ কৃষি কর্মকর্তা  জাহিদুল করিম আরটিভি অনলাইনকে বলেন ,  এবার ফুল চাষে ব্যাপক সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।  স্থানীয় ফুল বাজারগুলোতে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ  ফুল বিক্রি হচ্ছে।  যা রাজধানীসহ দেশের  বিভিন্ন  স্থানে ফুল বাজারে চাহিদা পূরণ করছে।

অসময়ে ফুল সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হলে কৃষকরা ফুল চাষের মাধ্যমে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে বড় ধরনের ভূমিকা রাখতে পারবেন বলে মনে করেন ফুল চাষিরা।

জেবি

RTVPLUS