logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৫ মাঘ ১৪২৭

মৌমাছি আতঙ্কে বিদ্যালয়ের দরজা-জানালা বন্ধ করে পাঠদান

কুড়িগ্রাম (উত্তর) প্রতিনিধি, আরটিভি অনলাইন
|  ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১১:৫৮ | আপডেট : ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:১৪
মৌমাছি শিক্ষার্থী ভবন
নাগেশ্বরী উপজেলার উত্তর কচাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের কার্নিসে মৌমাছির চাক
মৌমাছি বাসা বেঁধেছে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। একটি নয় দুটি নয় একেবারে ২২টি চাক দিয়েছে বিদ্যালয়টির তিন দিকের কার্নিসে। বাদ যায়নি সিঁড়ির ছাদও। মৌমাছির হুল ফোটানোর আতঙ্কে বিদ্যালয়টির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। ইতোমধ্যে সাত থেকে আটজন শিক্ষার্থী মৌমাছির আক্রমণের শিকার হয়েছে। ভয়ে অনেক শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে আসা ছেড়ে দিয়েছে। মৌমাছির আক্রমণ থেকে বাঁচতে দরজা-জানালা বন্ধ রেখে নেওয়া হচ্ছে বার্ষিক পরীক্ষা।

এমন ঘটনা কুড়িগ্রাম জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার উত্তর কচাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। প্রত্যন্ত চরাঞ্চলের এ বিদ্যালয়টিতে একমাস  আগে হঠাৎ করে একটি  মৌমাছির চাক বসে। দিনের পর দিন বাড়তে থাকে এ চাকের সংখ্যা। এখন এ চাকের সংখ্যা বিশ ছাড়িয়েছে। শুধু তাই নয় দুই একদিন পরপরই আসছে আরও নতুন চাক।

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, মাঝে মধ্যেই মৌমাছি উড়ে এসে সারা শরীরে হুল ফুটায়, তাই তাদেরকে সবসময় ভয়ে থাকতে হয়।

শিক্ষকরা জানান, চুপচাপ রুমে ঢুকে দরজা জানালা বন্ধ করে দিয়ে স্কুলের কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে।

২৪০ জন শিক্ষার্থী নিয়মিত থাকলেও মৌমাছির ভয়ে দুইশ’র নিচে নেমেছে উপস্থিতির হার। বর্তমানে বার্ষিক পরীক্ষা চলছে।বিকল্প কোনও পথ না থাকায় রুমের দরজা-জানালা সব বন্ধ করে দিয়ে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা জানায় কম আলোয় লিখতে কষ্ট হলেও এক প্রকার বন্দি হয়েই তার পরীক্ষা দিচ্ছে।

বিদ্যালয়টির সহকারী শিক্ষিকা খুশি রাণী জানান, একটু বাতাস বইলে বা পাখি উড়লে সঙ্গে সঙ্গেই মৌমাছির দল এসে আমাদের আক্রমণ করে। মাথা, মুখ এমনকি সারা শরীরে হুল ফুটায়।

গেল শনিবার সকালে প্রথম শ্রেণির বেশ কয়েকজনকে হুল ফুটিয়ে আহত করেছে মৌমাছি। এদের মধ্যে একজনের অবস্থা অনেক খারাপ। বেশ কিছু মৌমাছি একসঙ্গে হুল ফুটিয়েছিল তার সারা শরীরে।

তিনি আরও জানান, মৌমাছির  কারণে খড়ে আগুন দিয়ে ধোঁয়ার সৃষ্টি করে বার্ষিক পরীক্ষা নিতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে আতঙ্কে থাকতে হয় তাদেরকে।

বিদ্যালয়টির সহ-সভাপতি তাইজুল ইসলাম জানান, মৌমাছি তাড়ানোর চেষ্টা করেও লাভ হয়নি। এখন শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

শুধু বিদ্যালয়টির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা নয়, আশে-পাশের বাড়ির বাসিন্দাদেরও দিন কাটে মৌমাছির আতঙ্কে।

জেবি/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়