ডাকাত আতঙ্কে রাজবাড়ীর কালুখালির চরাঞ্চলের পানিবন্দী মানুষ

প্রকাশ | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:২০

রাজবাড়ী প্রতিনিধি

বন্যায় রাজবাড়ীর চরাঞ্চলের ১০টি ইউনিয়নের বিস্তৃর্ণ এলাকা পানিতে তলিয়ে অধিকাংশ বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকেছে। এসব এলাকায় খাবার ও বিশুদ্ধ পানি সংকট যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা এবং রাতে ট্রলারযোগে ডাকাত এসে গরু-ছাগলসহ সর্বস্ব লুটে নিয়ে যাচ্ছে।

রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার পদ্মা নদীতে এক সপ্তাহ পানি বৃদ্ধির কারণে চরাঞ্চলের ১৯টি গ্রামে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট চলছে। গ্রামগুলো হলো মাধবপুর, হরিণবাড়ীয়া, লস্করদিয়া, কৃষ্ণনগর, ভবানীপুর, হরিণাডাঙ্গা, চররাজপুর, রাণীনগর, বিজয়নগর, নারায়ণপুর, আলোকদিয়া, বল্লভপুর, ভাগলপুর, বাগঝাপা, গঙ্গানন্দপুর, কামিয়া, কালুখালী, পাড়াবেলগাছী ও গতমপুর।

কালুখালির রতনদিয়া ইউপি সদস্য আবুল কুদ্দুস তাদের মানবেতর জীবনযাপনের কথা তুলে ধরে ত্রাণ সাহায্যের ব্যবস্থার দাবি জানালেন। এদিকে বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীতে প্রচণ্ড ঢেউয়ের সৃষ্টি হয়েছে। আর এতে ভেঙে যাচ্ছে গঙ্গানন্দপুর কৃষ্ণনগর সড়ক। ফলে শহর থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হতে চলছে চরাঞ্চলের প্রায় ১০ হাজার মানুষ। এসব এলাকার মানুষ জানালেন, বন্যা কবলিত এলাকা পানিবন্দী থাকার সুযোগে ট্রলারযোগে ডাকাত বাহিনী এসে গতকাল তিনটি গরু, ৫টি ছাগলসহ সর্বস্ব লুটে নিয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে কালুখালি থানার ওসি মোঃ কামরুল ইসলাম জানান, চরাঞ্চলে মানুষদের পাহাড়ার ব্যবস্থা করার কথা বলা হয়েছে।

পি