logo
  • ঢাকা বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

পাবনায় দলবেঁধে ধর্ষণের পর থানায় বিয়ে: ওসি প্রত্যাহার, এসআই বরখাস্ত (ভিডিও)

পাবনা প্রতিনিধি
|  ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:৪১ | আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:৩৬
পাবনায় গৃহবধূকে দলবেঁধে ধর্ষণ এবং থানায় তাদের একজনের সঙ্গে তার বিয়ে দেয়ার ঘটনায় সদর থানার ওসি ওবাইদুল হককে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এসআই একরামুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। 

আজ বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নেয় জেলার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম জানান।

এছাড়া এ ঘটনায় মামলার আরও দুই আসামি জাকির হোসেন (৩৫) ও সঞ্জু মোল্লাকে (২২)  গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোরে তাদের টেবুনিয়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত জাকির হোসেন ড্রাইভার সদর উপজেলার ইসলামগাঁতি গ্রামের আব্দুস ছামাদ সরদারের ছেলে ও সঞ্জু মোল্লা টেবুনিয়া ফলিয়া গ্রামের কালাম মোল্লার ছেলে।

উল্লেখ্য, তিন সন্তানের জননী ওই নারী অভিযোগ করেন, গত ২৯ অগাস্ট প্রতিবেশী রাসেল আহমেদ তাকে তার বাড়িতে নিয়ে এক সহযোগীসহ ধর্ষণ করে। এর দুদিন পর তাকে একটি  অফিসে নিয়ে তিন দিন আটকে রেখে সেখানে চার-পাঁচন মিলে তাকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনার পর ওই গৃহবধূ নিজে বাদী হয়ে পাবনা থানায় লিখিত অভিযোগ করে। পুলিশ এ অভিযোগের ভিত্তিতে রাসেলকে আটক করলে মামলা নথিভুক্ত না করে ওই রাতেই রাসেলের সঙ্গে তার বিয়ে দেয় পুলিশ।

 

অন্যদিকে ধর্ষণে অভিযুক্ত রাসেল বলেন, রিমান্ডে নেয়ার ভয় দেখিয়ে পুলিশ জোর করে আমাকে বিয়ে দিয়েছে। আমি নির্দোষ। আমাকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে।

---------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : কুমিল্লায় শিশু ধর্ষণ, ফেসবুকে ভিডিও ভাইরাল
---------------------------------------------------------------------

পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওবাইদুল হক সোমবার বিকেলে বলেন, প্রথমদিকে মেয়েটির কোনও অভিযোগ ছিল না। পরে পরিবারের সম্মতিতে রাসেলের সঙ্গে তার বিয়ে দেয়া হয়। তবে থানায় বিয়ে হয়েছে কিনা এ তথ্য আমার কাছে নেই।

তবে, সোমবার দুপুরে ভিকটিম নারী রাসেল ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে স্বীকার করেছেন সদর থানার ওসি।

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়