logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

৩ কোটি টাকার ধান বীজ আত্মসাৎ: কৃষি খামারের ৩ উপপরিচালকসহ বরখাস্ত ৪

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি
|  ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২২:০৯ | আপডেট : ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৮:০৩
৩ কোটি টাকার ধান বীজ আত্মসাৎ: কৃষি খামারের ৩ উপপরিচালকসহ বরখাস্ত ৪
৩ কোটি টাকার ধান বীজ আত্মসাৎ: কৃষি খামারের ৩ উপপরিচালকসহ বরখাস্ত ৪
অসৎ উদ্দেশ্য ও বিধি বহির্ভূতভাবে প্রায় তিন কোটি টাকা মূল্যের ১২৯ মেট্রিক টন ধান বীজ ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার দত্তনগর কৃষি খামার থেকে চুরি করে পাচারের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় দত্তনগর কৃষি খামারের তিন উপ-পরিচালককে শাস্তিমূলক বদলীসহ সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। 

বরখাস্তকৃত কর্মকর্তারা হলেন, দত্তনগর কৃষি খামারের গোকুলনগর ইউনিটের উপ-পরিচালক তপন কুমার সাহা, করিঞ্চা খামারের উপ-পরিচালক ইন্দ্রজিৎ চন্দ্র শীল ও পাথিলা কৃষি খামারের উপ-পরিচালক আক্তারুজ্জামান তালুকদার। একইসঙ্গে যশোর বীজ পক্রিয়াজাত কেন্দ্রের উপ-পরিচালক মো. আমিন উল্যাকেও বরখাস্ত করে চিঠি দেয়া হয়েছে। 

বিএডিসির সচিব আব্দুল লতিফ সোমবার বিকেলে এক চিঠিতে এই আদেশ দেন। বিএডিসির ওয়েবসাইট থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সচিব আব্দুল লতিফ সাক্ষরিত বরখাস্ত কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো পৃথক পৃথক স্মারকের চিঠিতে বলা হয়েছে, বিধি বহির্ভূতভাবে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার দত্তনগরের, গোকুল নগর, পাথিলা ও করিঞ্চা বীজ উৎপাদন খামারে ২০১৮-১৯ উৎপাদন বর্ষে অতিরিক্ত ১২৯.২২ মেট্রিক টন এসএল-৮এইচ হাইব্রিড জাতের ধান বীজ গুদামে মজুদ করা হয়। বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়ার জন্য এ মজুদের তথ্য গোপন রাখা হয়। এমনকি প্রক্রিয়াজাত বীজ গুদামে রাখার চালানের কোনও তথ্য প্রমাণও স্ব স্ব খামারের উপ-পরিচালকের দফতরে রাখা হয় না।

হঠাৎ করে এ বিষয়টি বিএডিসির ওপর মহলে জানাজানি হলে উচ্চ পর্যায়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্তে বেরিয়ে আসে দুর্নীতির সেই খবর।

তদন্ত কমিটির প্রধান মহা-ব্যবস্থাপক বীজ (বিএডিসি) নুরুননবী সর্দার সম্প্রতি এ সংক্রান্তে একটি প্রতিবেদন দাখিল করেন। ওই প্রতিবেদনে অবৈধভাবে ধান বীজ গুদামে মজুদ রাখার বিষয়টি ফুটে উঠে। 

---------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : রংপুরের উপনির্বাচনে ৭ প্রার্থী বৈধ
---------------------------------------------------------------------

উল্লেখ্য, ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার দত্তনগর গোকুলনগর, পাথিলা ও করিঞ্চা বীজ উৎপাদন খামার থেকে কৌশলে প্রায় ৩ কোটি টাকার ১২৯.২২ মেট্রিক টন ধান চুরি করে বিক্রির জন্য যশোর বীজ বিক্রয় কেন্দ্রে পাঠানো হলে ধরা পড়ে যান ওই তিন উপ-পরিচালক। বিষয়টি তদন্ত করতে এসে সত্যতা পান বিএডিসির তদন্ত কর্মকর্তারা। 

অভিযোগ উঠেছে, প্রতি বছর চাহিদা বা বরাদ্দপত্রের এভাবে কোটি কোটি টাকার ধান বীজ পাচার করা হয় বলে খামারের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়।

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়