logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৪ আশ্বিন ১৪২৬

কোনো অনুষ্ঠানই জমে না বালিশ মিষ্টি ছাড়া (ভিডিও)

এম মুখলেসুর রহমান
|  ২৩ আগস্ট ২০১৯, ১০:৩২ | আপডেট : ২৩ আগস্ট ২০১৯, ১৫:২৪
বালিশ; নেত্রকোনার বিখ্যাত মিষ্টি। যার সুনাম ছড়িয়েছে দেশ-বিদেশে। দাম কম আর সুস্বাদু হওয়ায় দিন দিন বাড়ছে এর চাহিদা। রসালো এক একটি মিষ্টি ওজনে আটশ’থেকে এক হাজার গ্রামের হয়ে থাকে। বিয়ে, জন্মদিনসহ যে কোন অনুষ্ঠানই জমে না এ মিষ্টি ছাড়া।

জিভে জল আনা মিষ্টি-বালিশ। যা নেত্রকোনায় গয়নাথের বালিশ মিষ্টি হিসেবে পরিচিত। প্রায় শত বছর আগে সর্বপ্রথম স্বর্গীয় গয়নাথ ঘোষ এ  মিষ্টির উদ্ভাবন করেন। আকৃতিগত দিক থেকে অনেকটা বালিশ সদৃশ হওয়ায় এর এমন নামকরণ করা হয়।

১৯৮৬ সালে গয়নাথ ঘোষের মৃত্যুর পর এ প্রতিষ্ঠানটির কর্ণদ্বার হিসেবে দায়িত্ব নেন নিখিল চন্দ্র মোদক। ১৯৯৮ সালে নিখিল চন্দ্র মোদকের মৃত্যর পর তিন পুরুষের এই প্রতিষ্ঠান এখন দেখভাল করেন তার ছেলে খোকন মোদক ও তার দুই ভাই।  

দেশি গাভির দুধ থেকে ছানা তৈরি করে চিনির সিরায় ভিজিয়ে আগুনে জাল দিয়ে রাতভর বিশেষ প্রত্রিুয়ায় সুদক্ষ কারিগরের মাধ্যমে তৈরি করা হয় এই বালিশ মিষ্টি। জনপ্রিয়তা পাওয়ায় জেলা শহরের পাশাপাশি দেশের বড় শহর গুলোতেও মিষ্টির শো-রুম করার পরিকল্পনা রয়েছে মালিক পক্ষের।

বালিশ মিষ্টি এখন নেত্রকানার ঐতিহ্য হিসেবে বিবেচিত। স্বাদ ও মান দুটোই অতুলনীয় হওয়ায় সরকারিভাবে এর ব্রান্ডিংয়ের কথা জানান নেত্রকোনার অতিরিক্তি জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি মোহাম্মদ মনোয়ার হোসেন।

আরো পড়ুন:

এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়