logo
  • ঢাকা রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

মিথ্যে অভিযোগের পিছনে প্রিয়ার ব্যক্তিগত স্বার্থ রয়েছে: এলাকাবাসী

পিরোজপুর প্রতিনিধি
|  ২১ জুলাই ২০১৯, ১৮:০৯
প্রিয়া সাহা
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে সংখ্যালঘু নির্যাতনের মিথ্যে অভিযোগের পিছনে প্রিয়া সাহার ব্যক্তিগত স্বার্থ রয়েছে বলছে দাবি করেছে তার নিজ বাড়ি পিরোজপুর এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়। স্থানীয়দের অভিযোগ, নিজের ঘরে নিজে আগুন দিয়ে এলাকার হিন্দু ও মুসলমানদের নামে মিথ্যে মামলা করে হয়রানি করছে এই নারী। তাকে বিচারের আওতায় আনার কথা বলছে স্থানীয় সাংসদও।

bestelectronics
প্রিয়া সাহা ওরফে প্রিয়বালা বিশ্বাস। পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলার মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের চরবানিয়ারী গ্রামের মৃত নগেন্দ্রনাথ বিশ্বাসের মেয়ে। প্রিয় বালার স্বামী মলয় কুমার সাহা দুদকের সদর দপ্তরে উপ-পরিচালক পদে কর্মরত রয়েছেন। সম্প্রতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের নামে মিথ্যাচার করে বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছেন।

প্রিয়া সাহার নানান কুকীর্তির প্রমাণ বেরিয়ে আসছে একে একে। তার নিজ বাড়ি পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার চরবানিয়ারী গ্রামের স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের সাথে পাশের বাগেরহাট জেলার চিতলমারী উপজেলার বাসিন্দাদের সাথে সীমানা নিয়ে বিরোধ রয়েছে। এ নিয়ে মাঝেমধ্যে দুপক্ষের মধ্যে অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটেছে। এ দুই পক্ষের মধ্যে অধিকাংশই হিন্দু সম্প্রদায়ের। চলতি বছরের শুরুতে প্রিয়া সাহার ভাই জগদীশ চন্দ্রের ঘরে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটলে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তবে স্থানীয়রা জানান, প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে মামলা করার জন্য ঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনাটি সাজানো হয়। 

এদিকে, রাষ্ট্রবিরোধী এমন বক্তব্যের কারণে তাকে বিচারের আওতায় আনার কথা বলছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম বলেন তাকে বিচারের আওতায় আনা হবে।

প্রিয়ার দুই মেয়ে প্রজ্ঞাপারমিতা সাহা ও ঐশ্বর্যলক্ষ্মী সাহা যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশুনা করেন। ‘শারি’ নামে বাংলাদেশের দলিত সম্প্রদায় নিয়ে একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার পরিচালক তিনি। এছাড়া বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক তিনি। ‘দলিত কণ্ঠ’ নামক একটি পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক প্রিয়া।

জিএ/পি

bestelectronics bestelectronics
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়