গরমে প্রশান্তি দিচ্ছে যশোরের তালের রস (ভিডিও)

প্রকাশ | ২৯ জুন ২০১৯, ১৬:১৪ | আপডেট: ২৯ জুন ২০১৯, ১৮:১৪

বিএম ফারুক, যশোর
যশোরের বিভিন্ন এলাকায় তালের রস সংগ্রহে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন গাছিরা, ছবি: আরটিভি অনলাইন

গ্রীষ্মের তীব্র দাবদাহে শরীর-প্রাণকে সতেজ ও ঠাণ্ডা রাখতে তালের রসের জুড়ি মেলা ভার। ভেজালমুক্ত, মিষ্টি ও সুস্বাদু তালের রস মানবদেহের জন্য উপকারী হওয়ায় এখন এটি বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। গরমে তাই একটু প্রশান্তি পেতে এর প্রচুর চাহিদা রয়েছে। যশোরের বিভিন্ন এলাকায় তালের রস সংগ্রহে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন গাছিরা।

তাল হওয়া বা না হওয়া উভয় গাছ থেকেই রস সংগ্রহ করা হয়। গাছের মোচা বা খাদির অংশ কেটে গাছিরা রস সংগ্রহ করেন। গরম যত বাড়ে গাছের রসও তত বেশি হয়। এ রস সংগ্রহ চলে চৈত্র থেকে আষাঢ় মাস পর্যন্ত।

ভরা মৌসুমে একটি গাছ থেকে প্রতিদিন অন্তত পাঁচ থেকে ছয় লিটার রস পাওয়া যায়। যা প্রতিদিন চারশ থেকে পাঁচশ টাকায় বিক্রি হয়।

গরমের সময় তালের রস স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। এই রসের মাধ্যমে গুড় তৈরি করা হয় যা খেতেও অনেক সুস্বাদু। ভেজালমুক্ত এ রস প্রাণকে সতেজ করার পাশাপাশি কোষ্ঠকাঠিন্যসহ শরীরের নানা সমস্যার উপশমকারী।

ব্যাপক চাহিদা থাকায় শুধু এই রস বিক্রির মাধ্যমে অনেকেই জীবিকা নির্বাহ করছেন। অনেকে রস বিক্রির মাধ্যমে সংসারে এনেছেন স্বচ্ছলতা।

প্রতিবছরই এ অঞ্চলে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকেও তালের চারা রোপণ কর্মসূচি পালন করা হয়।

এ প্রসঙ্গে যশোরের শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গৌতম কুমার শীল বলেন, প্রতিবছর আমরা ২০ থেকে ৫০ হাজার তালের চারা রোপণ করি। আমরা আশাবাদী, অদূর ভবিষ্যতে এই উপজেলা তালের রস উৎপাদনে সমৃদ্ধ হবে।

পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ ও খেতে সুস্বাদু হওয়ার পাশাপাশি এ রস দিয়ে গুড়, পাটালি ও মিছরিসহ নানা ধরনের মিষ্টান্ন করা যায় বলে দিনদিন এই তালের রসের চাহিদা বেড়েই চলেছে।

জিএ/পি