• ঢাকা সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬

গরিবের ডাক্তার যিনি

জাহাঙ্গীর আলম বিশ্বাস, মানিকগঞ্জ
|  ১২ জুন ২০১৯, ১৬:৪১ | আপডেট : ১২ জুন ২০১৯, ১৭:০৯
গরিবের ডাক্তার লুৎফর রহমান। মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার ধানকোড়া ইউনিয়নের সাহেব পাড়ার গ্রামে তার জন্ম। তিনি মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেলা হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার হিসেবে কর্মরত আছেন। 

whirpool
তিনি তার গ্রামের দরিদ্র মানুষকে সবসময় তার সাধ্যমত বিনা পয়সায় চিকিৎসা এবং ওষুধ দিয়ে থাকেন। এছাড়া প্রতিবছর একবার তিনি সহস্রাধিক দরিদ্র ব্যক্তিকে ওষুধসহ ব্যবস্থাপত্র দেন। গত ৫ বছর ধরে তার বাবা আনসার আলীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিনা পয়সায় চিকিৎসা ও ওষুধ দিচ্ছেন তিনি। 

মঙ্গলবার (১১ জুন) ডাক্তার লুৎফর রহমান তার বাবার ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে তার পৈত্রিক বাড়ির আঙিনায় আয়োজন করেন ৫ম চিকিৎসা ক্যাম্প। এখানে তার সহকর্মীরা ছাড়াও ছিলেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। 

আঙিনা জুড়ে করা প্যান্ডেলে সেবাদানকারী ডাক্তারের জন্য আলাদা আলাদা কর্নার করা ছিল। নাক, কান ও গলার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক খায়রুল বাসার, গাইনি চিকিৎসক ফারজানা রহমান, শিশু চিকিৎসক হুমায়ুন কবির, ডা. মানবেন্দ্র সরকার মানব, ডা. রাজিব বিশ্বাসসহ ওই ক্যাম্পে আসা চিকিৎসকরা এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন।  

তারা বলেন, নিজের টাকা খরচ করে মেডিক্যাল ক্যাম্প ও বিনা মূল্যে হাজারো মানুষকে ওষুধ বিতরণ করতে শুধু টাকাই লাগে না, লাগে একটি বড় মন। যা রয়েছে ডাক্তার লুৎফর রহমানের। 

ওই মেডিক্যাল ক্যাম্পে আসা ষাটোর্ধ্ব আকলিমা বেগম বলেন, ‘সাহেবপাড়া গ্রামের গরিব মানুষের ডাক্তার হলেন লুৎফর রহমান। তার কাছে গেলে যত্নসহকারে দেখে ও টাকা ছাড়া আমাগো সব ওষুধ দেন।’

গ্রামের অনেক নারী-পুরুষ বলেন, তারা পাঁচ বছর ধরে বিনা পয়সা চিকিৎসাসেবা ও ওষুধ পাচ্ছেন। কয়জন ডাক্তার এ রকম করে। তিনি হলেন গ্রামের গরিবের ডাক্তার। 

এবারের মেডিক্যাল ক্যাম্পে ধানকোড়া ইউনিয়নসহ পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের প্রায় ৫ হাজার রোগী চিকিৎসাসেবা এবং ওষুধ পান। 

দিনব্যাপী এই কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট গোলাম মহীউদ্দীন এবং প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীম।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে ডা. লুৎফর রহমান বলেন, পেশাগত দায়িত্বের পাশাপাশি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে তিনি এসব করছেন। জন্ম তেকে মৃত্যু পর্যন্ত একজন মানুষের জন্য রাষ্ট্র অনেক কিছু করে। এ কারণে সব মানুষেই রাষ্ট্রের কাছে ঋণী। আর এই ঋণ পরিশোধ করার সবচেয়ে বড় জায়গা হচ্ছে মানুষ। কারণ এই মানুষের পয়সা দিয়ে রাষ্ট্র চলে। তাই মানব সেবায় সবারই এগিয়ে আসা দরকার।

তিনি জানান, তিনি খুব কাছে থেকে উপলব্ধি করেছেন গ্রামের অসহায় মানুষ কিভাবে চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হয়। অনেকেই আছে পয়সার অভাবে ওষুধ কিনে খেতে পারেন না। সেই ভাবনা থেকে তিনি সারাবছর বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানি থেকে ভিজিট হিসেবে যে সব ফ্রি ওষুধ (স্যাম্পল) পান তা তিনি জমিয়ে বছরে একবার তার বাবার মৃত্যুবার্ষিকীতে দরিদ্র মানুষের মাঝে বিতরণ করে থাকেন। 

শুধু তাই নয়। তিনি অবসর পেলেই ছুটে যান তার গ্রামে। তিনি বাড়ি বাড়ি ঘুরে অসুস্থ ব্যক্তিকে খুঁজে বের করে তার চিকিৎসা দেন এবং বিনামূল্যে ওষুধের ব্যবস্থা করেন। এছাড়া বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছেও তিনি নিজে ওইসব গরিব অসহায় রোগীদের নিয়ে যান। 

মানিকগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল আমিন আখন্দের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেলা হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. আব্দুল আওয়াল, মানিকগঞ্জ ডায়াবেটিক হাসপাতালের সাধারণ সম্পাদক সুলতানুল আজম খান আপেল, মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম ছারোয়ার ছানু, মানিকগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মোনায়েম খান, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফছার উদ্দিন সরকার, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি লিয়াকত আলী ভাণ্ডারীসহ আরও অনেকে। 

এই সেবা আরও বেশী মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে ডাক্তার লুৎফর রহমান তার কিছু উদ্যমী তরুণদের নিয়ে গড়ে তুলেছেন ‘মানুষ মানুষের জন্য’ নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনও।

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়