logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬

জাজিরায় ১০ টাকা কেজির ৪৪ বস্তা চাল আত্মসাৎ

শরীয়তপুর প্রতিনিধি
|  ০৮ মে ২০১৯, ১০:৩৭ | আপডেট : ০৮ মে ২০১৯, ১১:০১
শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার বড়কান্দি ইউনিয়নে ১০ টাকা কেজির ৪৪ বস্তা চাল ডিলার আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ডিলারের খাতাপত্র ও চাল জব্দ করেছেন। এ নিয়ে হতদরিদ্র মানুষের মধ্যে হতাশা বিরাজ করছে।

whirpool
জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় হতদরিদ্রদের মধ্যে ১০টাকা কেজি দরে চাল বিক্রির জন্য ১২টি ইউনিয়নে ১২ জন ডিলার নিয়োগ করা হয়েছে। এর মধ্যে বড়কান্দি ইউনিয়নে মো. নাসির মৃধাকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তার দোকান বড়কান্দি ইউনিয়নের নয়াবাজার নামক স্থানে। এপ্রিল মাসের জন্য বরাদ্দকৃত ৩০০ জনের ১৮০ বস্তা চাল উত্তোলন করেছেন তিনি। মঙ্গলবার ছিল চাল বিতরণের ধার্য তারিখ। কিন্তু ডিলার হতদরিদ্রদের মধ্যে চাল বিতরণ না করে খোলা বাজারে বিক্রি করে দিয়েছেন।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস মঙ্গলবার সকালে সরেজমিনে তদন্তে যান। সেখানে গিয়ে ডিলারের চাল বিতরণ খাতা ও মজুদ পরীক্ষা করে অনিয়ম দেখতে পান। এই সময় ৩০০ কার্ডধারীর মধ্যে ২৪০ জনের চাল বিতরণ দেখে মজুদ পরীক্ষা করেন। ৬০ বস্তা চাল মজুদ থাকার কথা থাকলেও মজুদ পাওয়া যায় মাত্র ১৬ বস্তা। ৪৪ বস্তা চালের কোনও হদিস নেই। এরপর ডিলারের খাতাপত্র ও মালামাল জব্দ করেন নিয়ে আসেন তিনি। তবে এই সময় বিতরণকারী কর্মকর্তা জাজিরা উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মাসুদ রুমি আকতারকে পাওয়া যায়নি।

পরে এই বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে রুমি আকতার বলেন, চাল বিতরণের বিষয়ে তাকে কিছু জানানো হয়নি। আমি ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানিনা।

অভিযুক্ত ডিলার মো. নাসির বেপারীর সঙ্গে মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস আরটিভি অনলাইনকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারি বড়কান্দি ইউনিয়নের ডিলার হতদরিদ্রদের মধ্যে ১০টাকা কেজি দরে চাল বিক্রিতে অনিয়ম করছেন। এ সংবাদের ভিত্তিতে সরেজমিন তদন্ত করতে গিয়ে বিতরণকৃত মাস্টার রোল ও মজুদে গরমিল পাওয়া যায়। এরপর ডিলারের খাতাপত্র ও মালামাল জব্দ করা হয়। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেবি/জেএইচ

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়