• ঢাকা শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

দ্বিতীয় কাঁচপুর ও ভুলতা উড়াল সেতুর উদ্বোধন শনিবার

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
|  ১৫ মার্চ ২০১৯, ২৩:১৫ | আপডেট : ১৫ মার্চ ২০১৯, ২৩:৩২
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতু ও ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের ভুলতা উড়াল সেতু উদ্বোধন করা হবে আগামীকাল শনিবার (১৬ মার্চ)। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এ সেতুর উদ্বোধন করবেন। এ সেতু উদ্বোধনের ফলে যানজটে দুর্ভোগ কমবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। ফলে এ সেতুটি উদ্বোধন নিয়ে বেশ আগ্রহে রয়েছেন এই পথে চলাচলরত চালক ও যাত্রীরা।

whirpool
দেশের পূর্বাংশের ১৮টি জেলার সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করেছে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক। এতে অতিক্রম করতে হয়েছে শীতলক্ষ্যা, মেঘনা ও গোমতী নদী। ফলে ১৯৭৭, ১৯৯১ ও ১৯৯৫ সালে শীতলক্ষ্যা, মেঘনা ও গোমতী নদীর উপর দিয়ে নির্মাণ করা হয় দুই লেন বিশিষ্ট কাঁচপুর সেতু এবং মেঘনা ও গোমতী সেতু।

নারায়ণগঞ্জ সড়ক বিভাগ, সেতু নির্মাণ ও বিদ্যমান সেতু পুনর্বাসন প্রকল্পের অফিস সূত্রে জানা যায়, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় জাপানি উন্নয়ন সংস্থা জাইকা ও বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে ২০১৬ সালের জানুয়ারি মাসে কাঁচপুর দ্বিতীয় সেতু, মেঘনা দ্বিতীয় সেতু ও গোমতী দ্বিতীয় সেতুর নির্মাণকাজ শুরু করে।

সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আলীউল হোসেন জানান, চার লেনের নতুন কাঁচপুর দ্বিতীয় সেতুটির ভিত্তি কংক্রিটের ঢালাই এবং পাঁচটি পিলারের ওপর স্টিল গার্ডারের। সেতুটির নির্মাণ কাজ করেন যৌথভাবে জাপানি চারটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান-ওবায়শি, শিমিজু, জেএফআই ও আইএইচআই। আর সেতুর উপ-ঠিকাদার বাংলাদেশের মীর আকতার হোসেন। মূল সেতু ও সংযোগ সড়ক নির্মাণে ব্যয় হয় এক হজার ৩০০ কোটি টাকা। মোট ব্যয়ের ৭৫ ভাগের যোগান দেয় জাইকা। আর ২৫ ভাগ অর্থ ব্যয় হয় বাংলাদেশ সরকারের। নতুন এ সেতুর দৈর্ঘ্য ৩৯৭ দশমিক ৩০ মিটার। প্রস্থ ১৮ দশমিক ১ মিটার।

আজ দুপুরে সরেজমিনে কাঁচপুর সেতুতে গিয়ে দেখা গেছে, সেতুর সব ধরনের নির্মাণকাজ শেষ। চার লেনের মধ্যে বসেছে সড়ক বিভাজক। পথচারীদের জন্য আছে প্রশস্ত ওয়াকওয়ে। উদ্বোধন না হওয়ায় সেতুর দুই পাশ বর্তমানে আটকে রাখা হয়েছে। অপরদিকে আজ ছুটির দিন হওয়ায় সেতুর দুইপাশে দীর্ঘ যানজট দেখা যায়।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্র্যাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর (টিআই) মোল্যা তাসলিম হোসেন বলেন, কাঁচপুর সেতুর উদ্বোধন হলে এ পয়েন্টে যানজট অনেকটা কমে যাবে।

অপরদিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে রূপগঞ্জ উপজেলায় ৩৫৩ কোটি ৩৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত  চারলেন বিশিষ্ট তৃতীয়তলা ভুলতা ফ্লাইওভার একটি অংশ এশিয়ান হাইওয়ের (বাইপাস) ভুলতা ফ্লাইওভার উড়াল সেতুর গাজীপুর-মদনপুর সড়কের একটি লেন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে করে এখানকার যানজট অনেকাংশে কমে যাবে। কমবে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি।

এ প্রসঙ্গে রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মমতাজ বেগম জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন বলে নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, এ উপজেলার ভুলতা এলাকায় রয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম পাইকারি কাপড়ের বাজার। এছাড়া ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ও এশিয়ান হাইওয়ের সংযোগস্থল হওয়ায় এখানে যানজট ছিল নিত্যদিনের সঙ্গী। তাই ভুলতা ফ্লাইওভারটির একপাশ উদ্বোধন শেষে খুলে দেওয়া হলে যানজট নিরসন হবে বলে আশা করছেন স্থানীয়রা।

জানা গেছে, ২০১৫ সালের অক্টোবরে ২৪০কোটি টাকা ব্যয়ে চার লেন বিশিষ্ট ভুলতা ফ্লাইওভার উড়াল সেতুটি নির্মাণে চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি সাক্ষর করেছিল সরকার।

বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে ফ্লাইওভারটি নির্মাণের কাজ পেয়েছিলো চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না রেলওয়ে ২৪ ব্যুরো গ্রুপ কোং, স্পেক্ট্রা ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড ও এএম বিল্ডার্স। চার লেনবিশিষ্ট ফ্লাইওভারের দৈর্ঘ্য হবে ১ দশমিক ২৩৮ কিলোমিটার। মূল ফ্লাইওভারের নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ১২০ কোটি টাকা, সড়ক নির্মাণে ব্যয় ১১২ কোটি টাকা এবং অন্যান্য ব্যয় ধরা হয় সাড়ে সাত কোটি টাকা।

জেবি/পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়