• ঢাকা শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৪ ফাল্গুন ১৪২৫

তিনি সনদ ছাড়াই বড় বিশেষজ্ঞ ডাক্তার!

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি
|  ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:০১ | আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১২:২৭
নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলীপুল এলাকায় অবস্থিত এম হোসেন জেনারেল হাসপাতালে রোগী দেখার সময় ফাহমিদা আলম (২৫) নামে এক ভুয়া চিকিৎসককে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওই হাসপাতালটি সিলগালা করে সকল কার্যক্রম বন্ধ করে দেন।

গতকাল বুধবার বিকেলে  র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জসিম উদ্দিন চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ফাহমিদা নিজেকে অভিজ্ঞ চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে দিনের পর দিন রোগীদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিলেন। এমন সংবাদে গেল মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে এম হোসেন জেনারেল হাসপাতালে অভিযান চালায় র‌্যাব। এসময় ভুয়া চিকিৎসক ফাহমিদাকে আটক করা হয়।

ফাহমিদা প্রেসক্রিপশন ফরমে তার নামের পাশে ডাক্তারি ডিগ্রি হিসেবে এমবিবিএস, পিজিটি (গাইনি অ্যান্ড অবস), এমসিএইচ (ডিএসএইচ), সিএমইউ, ডিএমইউ মেডিসিন গাইনি ও শিশু রোগ বিষয়ে অভিজ্ঞ ও সনোলজিস্ট হিসেবে উল্লেখ করেছেন। অভিযানকালে র‌্যাব সদস্যরা নিবন্ধনকৃত চিকিৎসক হিসেবে তার সনদ দেখতে চাইলে তিনি কোনও কাগজপত্র দেখাতে পারেননি।

পরে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুল ইসলাম ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন। সেইসঙ্গে হাসপাতালটি সিলগালা করে সকল কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেন।

প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায়, ফাহমিদা আলম দীর্ঘদিন নিজেকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার পরিচয় দিয়ে এই হাসপাতালে নিয়মিত রোগী দেখে আসছিলেন। তিনি অকারণে রোগীদের বিভিন্ন প্যাথলজিক্যাল টেস্ট দিয়ে অনেক টাকা হাতিয়ে নেন।

ম্যাটস থেকে একটি ডিপ্লোমা কোর্স করা ফাহমিদা আলম এই হাসপাতালে আলট্রাসনোর টেকনিশিয়ান হিসেবে চাকরি নেন। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগসাজশ করে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে রোগী দেখা শুরু করেন।

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়