logo
  • ঢাকা বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

গাইবান্ধায় বরযাত্রী বহনকারী প্রাইভেটকার চাপায় নিহত দুই

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
|  ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ২১:০৪
গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে বরযাত্রী বহনকারী প্রাইভেটকারের চাপায় বাইসাইকেল আরোহীসহ দুইজন নিহত হয়েছে। আজ (শুক্রবার) দুপুরে সাদুল্লাপুর উপজেলার দক্ষিণ মনদুয়ার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

bestelectronics
নিহতরা হলেন- সপ্তম শ্রেণির ছাত্র আল আমিন (১৪) ও তার প্রতিবেশী ভাই মিলন মিয়া (১৭)। আল আমিন সাদুল্লাপুর উপজেলার দক্ষিণ মনদুয়ার গ্রামের নুর আলমের ছেলে ও মিলন মিয়া একই গ্রামের লাল মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আজ সাদুল্লাপুর উপজেলার প্রভাবশালী ব্যবসায়ী জিয়াউল হক রতনের মেয়ের সাথে উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকতা শাহেদুর রহমানের বিয়ে। বর শাহেদুর রহমানের বাড়ি জামালপুর জেলায়। আজ দুপুরে বরপক্ষ বিয়ের উদ্দেশ্যে জামালপুরের বাহাদুরাবাদঘাট থেকে গাইবান্ধার বালাসীঘাটে আসে। অন্যদিকে বরকে আনার জন্য জিয়াউল হক রতন সাদুল্লাপুর থেকে তার প্রাইভেটকারটি (ঢাকা মেট্রো-গ-২৬-৩৫২০) গাইবান্ধার বালাসীঘাটে পাঠায়। পথিমধ্যে দুপুর পৌনে দুইটার দিকে গাইবান্ধা-সাদুল্লাপুর সড়কের দসরেরগোলা স্থানে দ্রুতগামী বরযাত্রী পরিবহনকারী প্রাইভেটকারটি দুই বাইসাইকেল আরোহীকে চাপা দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে আল আমিন ও মিলন মিয়া গুরুতর আহত হয়। তাদের উদ্ধার করে সাদুল্লাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আল আমিনকে মৃত ঘোষণা করেন। গুরুতর মিলন মিয়াকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকেও মৃত ঘোষণা করেন। পরে স্থানীয় জনতা প্রাইভেটকারটিকে ধাওয়া করে গাইবান্ধা শহরের খানকা শরীফ এলাকায় আটক করলেও চালক পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আল আমিন ও মিলন মিয়া নিহত হওয়ার খবর উপজেলার দক্ষিণ মনদুয়ার গ্রামে পৌছালে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। নিহত দুই কিশোরের পারিবারিক সূত্র জানায়, জুম্মার নামাজ শেষে তারা বাইসাইকেল যোগে পার্শ্ববর্তী গ্রামে দাওয়া খেতে যাচ্ছিল। কিন্তু পথিমধ্যে তারা দুর্ঘটনার শিকার হয়।

সাদুল্লাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরশেদুল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রাইভেটকারটি আটক করা হয়েছে। দুইজনের মরদেহ পুলিশের হেফাজতে দেওয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

পি

bestelectronics bestelectronics
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়