DMCA.com Protection Status
  • ঢাকা রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় টানা ২০ দিন ধরে ধর্ষণ

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
|  ১৫ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:০৩ | আপডেট : ২১ জানুয়ারি ২০১৯, ১১:৫২
টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলায় দশম শ্রেণির এক মাদরাসাছাত্রীকে ২০ দিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার কালিয়া ইউনিয়নের ধলীপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।   

এই ঘটনায় গেল রোববার রাতে ওই ছাত্রীর মা বাদী হয়ে সখীপুর থানায় একটি মামলা করেছেন।

মামলার পর রাতেই অভিযুক্ত মজিবর রহমান (৪২) ও তার স্ত্রী আমেনা বেগমকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে এখনো নিখোঁজ ছাত্রীকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

সোমবার সকালে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু আদালতে মজিবরকে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। তবে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

নির্যাতনের শিকার ছাত্রীর মা বলেন, ‘প্রতিবেশী মজিবর আমার মেয়েকে তার প্রবাসী ছেলের বৌ করার জন্য বিভিন্ন সময় প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। সে মেয়েকে উচ্চশিক্ষিত করার প্রলোভনও দেখায়। কিন্তু তার প্রস্তাবে আমরা রাজি হয়নি। এরপর গেল বছরের ২৪ ডিসেম্বর কালিয়া বাজারে কেনাকাটা করতে গেলে আমার মেয়ে নিখোঁজ হয়। পরিবারের লোকজন মানসম্মানের ভয়ে বিষয়টি লুকিয়ে রাখে। গোপনে গোপনে মেয়েকে খুঁজতে থাকে। গেল শনিবার জানতে পারি, মজিবর আমার মেয়েকে অপহরণ করেছে। তার ছেলের সঙ্গে বিয়েতে রাজি না হওয়ায়, প্রতিশোধ নিতে সে আমার মেয়েকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করেছে। আমি এই ঘটনার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’   

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমির হোসেন আরটিভি অনলাইনকে জানান, দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ২০ দিন আগে তুলে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে গেল রোববার রাতে একটি মামলা হয়েছে। প্রধান আসামি ও তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিখোঁজ ছাত্রীর সন্ধান জানতে মজিবরের পাঁচ দিন রিমান্ড চাওয়া হয়েছিল। আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

মজিবরের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে নিখোঁজ ছাত্রীকে উদ্ধার করা হবে। নিখোঁজ ছাত্রীর পরিবারের ধারণা, মজিবর তাদের মেয়েকে আটকে রেখে ধর্ষণ করেছে।

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়