DMCA.com Protection Status
  • ঢাকা শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯, ১৩ বৈশাখ ১৪২৬

‘ধান কাটামারী লাগিলে না শীত আসি পড়িল’

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
|  ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ১৩:৩৪
‘ধান কাটামারী লাগিলে না শীত আসি পড়িল এই ধরনের ব্যাপার আগত দেহং নাই।’  (ধান কাটার আগেই শীত এসে পড়লো, এই ধরনের ঘটনা আগে দেখিনি)। এই ভাষ্য কুড়িগ্রামের বুরঙ্গামারি উপজেলার আচান মিয়ার।

শুধু আচান মিয়াই নয় আগাম এই শীত নিয়ে চিন্তিত কুড়িগ্রাম জেলার নিম্নবিত্ত মানুষেরা।

হেমন্তের শুরুতেই দেশের উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামে বাড়ছে শীতের তীব্রতা। রাতে প্রচণ্ড ঠাণ্ডা এবং সকাল ১০টা পর্যন্ত থাকছে মাঝারি ধরনের কুয়াশা। গতকাল থেকে সকালের তাপমাত্রা ১৪ থেকে ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে উঠানামা করছে।

গেল সাত দিনে জেলার নিম্ন তাপমাত্রার গড় ১৮.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, গেল কয়েক বছরের চেয়ে এবারে শীতের তীব্রতা বাড়তে পারে। চলতি বছর জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তীব্র শীত পার করেছে এ জেলার মানুষ।

দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার স্কেলে কুড়িগ্রাম ছিল দ্বিতীয় স্থানে। বছর শেষ হতে না হতেই আবার শীতের আগমন জনমনে একপ্রকার ভীতি দেখা দিয়েছে। 

১৬টি নদ-নদী বেষ্টিত কুড়িগ্রাম জেলার সাড়ে চারশত চরাঞ্চলে প্রায় পাঁচ লাখ মানুষ বাস করে। কৃষি ও কৃষি শ্রমের ওপর নির্ভরশীল এসব মানুষের পরিবার প্রতি বাৎসরিক গড় আয় ৮-১০ হাজার টাকা। নিম্ন আয়ের এসব মানুষ নিজেদের দুবেলা খাবার যোগাতেই যেখানে হিমশিম খায় সেখানে শীতের গরম কাপড় ক্রয় করা দূরহ ব্যাপার। 

অসময়ে শীতের আগমনে অপ্রস্তুত জেলাবাসী। কমবেশি সবাই ছুটছে গরম কাপড়ের দোকানগুলোতে। লেপ, তোষক, পুরাতন গরম কাপড়ের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় বাড়ছে। নিজেদের সাধ্যমতো কিনছেন গরম কাপড়।

নাগেশ্বরীর পুরাতন কাপড়ের দোকানে শীতের কাপড় কিনতে আসা নারায়ণপুর ইউনিয়নের মকুল বলেন, এবার আগেভাগেই শীত নামছে তাই কাপড় কিনতে দুই নদী পাড় হয়ে এসেছি। কচাকটার কেদার ইউনিয়নের আব্দুল করিম বলেন, ‘এ্যালাই শীতের যা অবস্থা দেখা যাউছে, তাতে ভরা মৌসুমে তো বাঁচায় যাবার নয়।’

কুড়িগ্রামের কৃষি ও আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানান, জলবায়ুর পরিবর্তন, বৃষ্টিপাত কম হওয়াও আগাম শীতের একটি কারণ তাছাড়া সাইবেরিয়া অঞ্চল থেকে এবার শৈত্যপ্রবাহ আগাম চলে এসেছে।

তিনি আরও বলেন, এবার এ অঞ্চলে গেল কয়েক বছরের চাইতে শীতের তীব্রতা বেশি হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।    

জেবি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়