Mir cement
logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

পিরোজপুর প্রতিনিধি : আরটিভি নিউজ

  ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:০১
আপডেট : ২৬ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:০৮

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুস্থদের ঘর নির্মাণে টাকা দাবির অভিযোগ  

উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুঃস্থদের ঘর নির্মাণে টাকা দাবির অভিযোগ  
উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

পিরোজপুরের কাউখালীতে দুস্থদের জন্য বরাদ্দকৃতঘর নির্মাণে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে টাকা নেয়ার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এক অসহায় নারী।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে তিনি স্থানীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পাঠ করেন। ভুক্তভোগী ওই নারীর নাম সাহিদা বেগম। তিনি উপজেলার চিরাপাড়া গ্রামের সামসুল হকের স্ত্রী।

জানা গেছে, মুজিববর্ষ উপলক্ষে ওই নারী পিরোজপুর জেলা পরিষদ থেকে একটি পাকা ঘর বরাদ্দ পান। ওই ঘরের নির্মাণ কাজের দায়িত্বে রয়েছেন কাউখালী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মৃদুল আহম্মেদ সুমন।

সংবাদ সম্মেলনে ওই নারী অভিযোগ করে জানান, দুস্থ হিসেবে মুজিববর্ষ উপলক্ষে তার নামে সম্প্রতি পিরোজপুর জেলা পরিষদ থেকে একটি পাকা ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়। ওই ঘর নির্মাণের জন্য কাউখালীর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মৃদুল আহম্মেদ সুমন তার (নারী) বাড়ির কাছে নির্মাণসামগ্রী রাখেন। ওই ইট তার (নারী) বাড়িতে নেওয়ার জন্য তার কাছে ৭ হাজার টাকা দাবি করেন। ওই টাকা না দিলে কাজ করবেন না বলে হুমকি দেন। পরে তিনি তাকে (ভাইস চেয়ারম্যান) সাত হাজার টাকা দেন। এর কয়েক দিন পর ইট কেনার কথা বলে আরও ছয় হাজার টাকা দাবি করেন ওই ভাইস চেয়ারম্যান। ওই নারী টাকা না দিলে কাজ বন্ধ রাখেন ভাইস চেয়ারম্যান। পরে নিরুপায় হয়ে তিনি আরও ছয় হাজার টাকা দেন। পরে দু-তিন দিন কাজ করে কাজ বন্ধ করে দেন। কাজ করতে বললে আবারও ৩০ হাজার টাকা লাগবে বলে ভাইস চেয়ারম্যান ওই নারীকে জানান। এরপরও ভাইস চেয়ারম্যানকে ফোন দিলে ওই নারীকে বার বার ফোন না দিতে বলেন এবং টাকা না দিলে কাজ কোনোদিনও হবে না বলে জানান। পরে তিনি নিরুপায় হয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে লিখিতভাবে বিষয়টি জানান।

এ বিষয়ে জানতে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মৃদুল আহম্মেদ সুমনের মুঠোফোনে ফোন দিলে তিনি জানান, আমার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ সঠিক নয়। কাজের মেয়াদের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করা হবে। টাকা নেওয়ার ব্যাপারে তিনি বলেন, সাইডে রাজমিস্ত্রি মজনুকে কাজের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সে যদি কোনো টাকাপয়সা নিয়ে থাকে আমি ব্যবস্থা নেব।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অসুস্থতার কারণে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের একটি সূত্র জানান, অভিযোগটি তদন্তের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চিরাপাড়া পারসাতুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে পাঠিয়েছেন।

চিরাপাড়া পারসাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. লায়েকুজ্জামান তালুকদার মিন্টু জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযোগটি তদন্তের জন্য আমার কাছে পাঠিয়েছেন। যথাসময়ে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

পিরোজপুর জেলা পরিষদের নির্বাহী রেবেকা খান জানান, ঘর নির্মাণের ব্যাপারে কোনো ধরনের টাকা বা মালামাল নেওয়ার সুযোগ নাই, একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি, বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এমএন/টিআই

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS