Mir cement
logo
  • ঢাকা বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
অনলাইন ডেস্ক
  ২৫ নভেম্বর ২০২১, ০০:৪৮
আপডেট : ২৫ নভেম্বর ২০২১, ১৩:২৫

প্রতারণার গডফাদার এলজিইডির ড্রাইভার সাবু : সিন্ডিকেট পঞ্চগড় থেকে কক্সবাজার

অভিযুক্ত প্রতারক শফিকুল ইসলাম সাবু

অবৈধ উপায়ে শত কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া স্বাস্থ্যের ড্রাইভার মালেকের মতোই এবার আরেক প্রতারকের সন্ধান মিলেছে পঞ্চগড়ে। নাম মো. শফিকুল ইসলাম, ওরফে সাবু (৫৫)। নিজেকে কখনও এলজিইডির রোডরোলার ড্রাইভার আবার কখনও পরিচয় দেন প্রতিষ্ঠানটির প্রভাবশালী ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা হিসেবে। জাল দলিল বানিয়ে অন্যের জমি বিক্রি করে অর্থ হাতিয়ে নেওয়াই যার পেশা। এ জন্য গড়ে তুলেছেন প্রতারণার এক বিশাল চক্র। পঞ্চগড় থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত বিস্তৃত তার প্রতারণার সাম্রাজ্য। অনুসন্ধানে জানা গেছে, কৃষি খামার গড়ার উদ্দেশ্যে পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার চিলাহাটি ইউনিয়নের ভাউলাগঞ্জ চরতিস্তাপাড়া ও ডোমার থানার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের কাঁঠালতলী গ্রামে জমি কেনে বেসকারি সংস্থা ‘সুবসতি’।

কৃষি খামার ও সংস্থাটির সম্পত্তি দেখভালের জন্য ২০১২ সালে কেয়ারটেকার পদে সাবুকে নিয়োগ দিয়েছিল সুবসতি। কিন্তু অভিযোগ উঠেছে সংস্থাটির কর্তাব্যক্তিদের অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে সুবসতির সাবেক এবং বর্তমান সভাপতি, সহসভাপতির স্বাক্ষর জাল করে জনৈক মো. সাইফুল ইসলাম সিদ্দিকের কাছে অন্তত সাড়ে ১১ একর জমি বিক্রি করে দিয়েছে প্রতারক মো. শফিকুল ইসলাম সাবু।

নিজে মালিক সেজে সংস্থাটির বিপুল পরিমাণ জমি অহেদ আলী নামে এক ব্যক্তির কাছে লিজ দিয়ে হাতিয়ে নিয়েছে ১৪ লাখ টাকা। সংস্থাটির জমি অবৈধভাবে দখল করে কোথাও কোথাও গেড়েছেন নামে-বেনামে বেশ কয়েকটি সাইনবোর্ড। এভাবে হাতিয়ে নিয়েছেন সংস্থাটির কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তি।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী সংস্থা ‘সুবসতি’র রংপুর ডিভিশনের কো-অর্ডিনেটর মো. সুরুজ্জামান বলেন, শফিকুল ইসলাম সংস্থার জমির মামলা-মোকদ্দমা মীমাংসা করার জন্য সংস্থার কাছ থেকে ১০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন। হঠাৎ জমিতে সাবুর নামে সাইনবোর্ড লাগানোর এ ঘটনায় সংস্থা থেকে মো. লিমন ও মো. শামীম নামে দুজনকে খোঁজ-খবর নিতে পাঠালে মো. শফিকুল ইসলাম সাবু তাদের ভয়ভীতি দেখায় এবং প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

অভিযোগের বিষয়ে বক্তব্য নেওয়ার জন্য মো. শফিকুল ইসলাম সাবুর মুঠোফোনে কল করলে, তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

টিআই

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS