Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১ কার্তিক ১৪২৮

কক্সবাজার প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ০৯ অক্টোবর ২০২১, ১৭:২২
আপডেট : ০৯ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৪২

‘মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ড প্রত্যাবাসনে প্রভাব ফেলবে না’

মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ড প্রত্যাবাসনে প্রভাব ফেলবে না: পররাষ্ট্রসচিব
পররাষ্ট্রসচিব

শীর্ষ নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনা রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কোন ধরণের প্রভাব ফেলবে না বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন।

শনিবার (৯ অক্টোবর) বিকেলে কক্সবাজার বিমানবন্দরে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় জড়িত ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। তাই এ ঘটনা প্রত্যাবাসনকে ব্যাহত করতে পারবে না।

তিনি আরও বলেন, আমরা মুহিবুল্লার পরিবারের সঙ্গেও কথা বলেছি। তাদের নিরাপত্তার বিষয়টিও দেখা হচ্ছে। ক্যাম্পে কোন ধরনের অনিয়মকে প্রশ্রয় দেয়া হচ্ছে না। প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া শুরুর জন্যও বিভিন্ন বিষয়ে কাজ চলমান রয়েছে। ভাসানচর প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘ যুক্ত হয়েছে। আস্তে আস্তে সবকিছু সরকারের নিয়ন্ত্রণে থাকছে।

দেশীয় গণমাধ্যম ক্যাম্পে প্রবেশে কোন বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে সচিব বলেন, এমন কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। এ বিষয়টি আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে দুই দিনের সফরের দ্বিতীয় দিনে শনিবার (৯ অক্টোবর) দুপুরে প্রতিনিধি দলটি মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনাস্থল কুতুপালংয়ের লম্বাশিয়া ক্যাম্প পরিদর্শন করেন। সেখানে নিহত মুহিবুল্লাহর ভাই হাবিব উল্লার সঙ্গে কথা বলেন। পাশাপাশি ক্যাম্পের রোহিঙ্গাদের সঙ্গেও কথা বলেছেন।

প্রতিনিধি দলে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন ছাড়াও আছেন, পশ্চিম ইউরোপ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের মহাপরিচালক ফায়াজ মুর্শিদ কাজি, পররাষ্ট্রসচিবের দপ্তর মহাপরিচালক মো. আলীমুজ্জামান ও সহকারী সচিব শোয়াইব-উল ইসলাম তরফদার।

এর আগে শুক্রবার (৮ অক্টোবর) দুই দিনের সফরে বিমানযোগে কক্সবাজারে আসে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেনের নেতৃত্বে ৪ সদস্যের প্রতিনিধি দলটি। পরে শনিবার (৯ অক্টোবর) বিকেলে তারা ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

উল্লেখ্য, গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে কক্সবাজারের উখিয়ায় লাম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে একদল দুর্বৃত্ত মুহিবুল্লাহকে গুলি করে হত্যা করে। মুহিবুল্লাহ হত্যার খবরে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে কিছুটা অস্থিরতা বিরাজ করছে। তাছাড়া মুহিবুল্লাহ ইস্যুতে সবর অবস্থানে রয়েছে পশ্চিমা বিশ্ব। মুহিবুল্লাহ হত্যা নিয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এ ঘটনায় জড়িত অপরাধীদের জবাবদিহির আওতায় আনার পাশাপাশি মুহিবুল্লাহর মৃত্যুর ঘটনা তদন্তের দাবি জানিয়েছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিনকেন।

মুহিবুল্লাহ আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের (এআরএসপিএইচ) চেয়ারম্যান ছিলেন। এই সংগঠনের হয়ে তিনি রোহিঙ্গাদের অধিকারের কথা তুলে ধরতেন। মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের চেষ্টায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছিলেন তিনি।

জিএম/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS