Mir cement
logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১ কার্তিক ১৪২৮

কুমিল্লা (উত্তর প্রতিনিধি), আরটিভি নিউজ

  ০৮ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৩
আপডেট : ০৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩:১৮

সন্ত্রাসী হামলায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন

সন্ত্রাসী হামলায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন
ফাইল ছবি

কুমিল্লার মুরাদনগরে সন্ত্রাসী হামলায় এসএসসি পরীক্ষার্থীর ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। মোবাইল ফোনে কথা বলাকে কেন্দ্র করে জিহাদ মোল্লা (১৬) নামে ওই এসএসসি পরীক্ষার্থীর ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মেহেদী হাসানকে (২৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আহত শিক্ষার্থী জিহাদ মোল্লা উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের বল্লবদী গ্রামের মানিক মোল্লার ছেলে। সে জাহাপুর কমলাকান্ত একাডেমি অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থী। গত বুধবার (০৬ অক্টোবর) এ ঘটনা ঘটলেও শুক্রবার (০৮ অক্টোবর) তা ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

স্থানীয় সূত্র জানা গেছে, মোবাইল ফোনে কথা বলাকে কেন্দ্র করে বুধবার সন্ধ্যায় মানিক মোল্লার সঙ্গে তার ছোট ভাই প্রবাসী আক্তার মোল্লার স্ত্রী মরিয়ম বেগমের কথা-কাটাকাটি হয়।এক পর্যায়ে ঘর থেকে ধারালো দা এনে মরিয়মের ছেলে মেহেদী হাসান চাচা মানিক মোল্লার মাথায় কোপ দিতে যান। বাবাকে বাঁচাতে গিয়ে তার ছেলে জিহাদ মোল্লা এগিয়ে এলে দায়ের কোপে তার ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এ সময় তার চিৎকারে এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য মুরাদনগর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। রাতেই বাবা-ছেলের অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে তাদের ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।এ ঘটনায় আহত আরও দুজন মুরাদনগর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মুরাদনগর উপজেলা আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা ডা. সিরাজুল ইসলাম মানিক আরটিভি নিউজকে জানিয়েছেন, বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে জিহাদ মোল্লাকে তার স্বজনরা হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এ সময় তার ডান হাতের কব্জি আলাদা অবস্থায় দেখে দ্রুত ব্লিডিং বন্ধ করে ব্যান্ডেজ দিয়ে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আহত জিহাদ মোল্লার মামা ফারুক মিয়া আরটিভি নিউজের কাছে দাবি করেন, আমার ভাগ্নে যদি সামনে দিয়ে হাত না দিতো তাহলে তার বাবার মাথা কেটে দু'ভাগ হয়ে যেতো।

মুরাদনগর থানার ওসি সাদেকুর রহমান আরটিভি নিউজকে বলেন, দায়ের কোপে ছেলের হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হওয়ার ঘটনায় মা সালেহা বেগম বাদী হয়ে মামলা করেছেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত মেহেদী হাসানকে গ্রেপ্তারের পর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অন্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে।

এমআই/এসকে

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS