Mir cement
logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮

পঞ্চগড় প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৩৮
আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২২:৪৮

শ্যালিকার সাথে মৌলভী শিক্ষকের অনৈতিক সম্পর্ক, স্কুল থেকে বরখাস্ত

শ্যালিকার সাথে মৌলভী শিক্ষকের অনৈতিক সম্পর্ক, স্কুল থেকে বরখাস্ত

পঞ্চগড় সদর উপজেলার একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক (মৌলভী) ’র সাথে শ্যালিকার অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে শিক্ষককে। বরখাস্ত হওয়া সহকারি শিক্ষক হলেন মো. হায়দার আলী। তিনি সিংরোড রতনীবাড়ি দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক। তার বাড়ি সদর উপজেলার চাকলা ইউনিয়নের নারায়নপুর দেওনিয়াপাড়া গ্রামে। ওই শিক্ষকের শ্বশুর একই স্কুলের নৈশ্য প্রহরী আশরাফুল ইসলাম।তার মেয়ের সাথে অবৈধ সম্পর্কের বিচার চেয়ে লিখিত অভিযোগ করেন তিনি। মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর দুপুরে হায়দার আলীকে বরখাস্তের আবেদন পঞ্চগড় সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কার্য্যালয়ে প্রদান করা হয়।

রতনীবাড়ি এলাকার স্থানীয় ও প্রধান শিক্ষক আমিনুল ইসলাম জানান, মৌলভী শিক্ষক হায়দার আলী তার শ্বশুরবাড়ি চাকলা ইউনিয়নের অমরখানা গ্রামে অতিরিক্ত যাওয়া আসা করেছিল। বার বার যাওয়া আসার সুযোগে শ্যালিকা শারমিন আকতারের সাথে গত এক মাস হতে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পরে হায়দার আলী। শারমিন আকতার সম্প্রতি পঞ্চগড় সরকারি মহিলা কলেজে হতে এইচএসসি পাস করেন। সম্পর্কের এক পর্যায়ে শারমিন আকতারকে নিয়ে স্ত্রীকে ফাঁকি দিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় হায়দার আলী । ঘটনা জানাজানি হলে রতনীবাড়ি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃস্টি হয়। করোনাকালীন স্কুল বন্ধ থাকায় প্রথমে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেস্টা করে মৌলভী শিক্ষক হায়দার আলী। তবে গত ২ সেপ্টেম্বর ওই ছাত্রীর বাবা একই স্কুলের নৈশ্য প্রহরী আশরাফুল ইসলাম শারমিন আকতারের সাথে অবৈধ সম্পর্কের অভিযোগে প্রধান শিক্ষক বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। গত ৮ সেপ্টেম্বর ম্যানেজিং কমিটি হায়দার আলীকে এ বিষয়ে কারন দর্শানোর নোটিশ প্রদান করে এবং ১০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ওই শিক্ষককে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়। গত ১২ সেপ্টেম্বর ম্যানেজিং কমিটির জরুরি সভায় মৌলভি শিক্ষক হায়দার আলীর জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় সর্বসম্মতিক্রমে বরখাস্তের সিদ্ধান্ত হয়। একই সাথে স্কুলের ভাবমূর্তি নস্ট করার অপরাধ হয়েছে বলেও সভায় উল্লেখ করা হয়।

ওই স্কুলের একজন ছাত্রীর অভিভাবক শিংরোড ভুজারি পাড়া গ্রামের বাসিন্দা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন আমরা মৌলভি শিক্ষক হায়দার আলীর কঠিন শ্বাস্তি দাবি করছি। কারন একজন মৌলভি শিক্ষক যদি এরকম অনৈতিকভাবে শ্যালিকার সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পরেন তাহলে তো ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে এই প্রভাব পড়বে। শারমিন আকতার এই স্কুল থেকেই এসএসসি পাশ করে।

বর্তমানে ওই শিক্ষক শ্যালিকাকে নিয়ে সদর উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের একটি বাড়িতে অবস্থান করছেন।

এদিকে অভিযুক্ত মৌলভী শিক্ষক হায়দার আলীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে খবর প্রকাশ না করার অনুরোধ জানায়।

ওই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মঈন উদ্দিন জানান স্কুলের নৈশ্য প্রহরী আশরাফুল ইসলামের কন্যার সাথে অবৈধভাবে সহকারি শিক্ষক (মৌলভি) হায়দার আলীর অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। পরে ওই শিক্ষক কারন দর্শানোর নোটিশের সন্তোষ জনক জবাব না দেওয়ায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

পঞ্চগড় সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম প্রমানিক জানান রতনীবাড়ি দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক হায়দার আলীকে বরখাস্তের একটি আবেদন পেয়েছি। ওই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অভিযোগ প্রমানিত হলে আরও কঠোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। বর্তমানে তাকে অর্ধবেতনে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

এমএন

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS