Mir cement
logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৩ আশ্বিন ১৪২৮

পদ্মায় ভাঙন, হুমকিতে দৌলতদিয়ার শতাধিক বসত বাড়ি 

পদ্মায় ভাঙন, হুমকিতে দৌলতদিয়ার শতাধিক বসত বাড়ি 
পদ্মায় ভাঙন

রাজবাড়ীর সদর উপজেলার মিজানপুর ও বরাট ইউনিয়নের গোদারবাজার অংশে কংক্রিট দিয়ে নির্মিত সিসি ব্লকের ১৫০ মিটার অংশে ব্যাপক ভাঙনের পর শুক্রবার (৩০ জুলাই) সকালে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ফেরিঘাট এলাকায় দ্বিতীয় দফায় ভাঙন শুরু হয়েছে। ভাঙনে নদী তীরবর্তী প্রায় ৩০ মিটার অংশ নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। হুমকির মধ্যে রয়েছে শত শত বসতবাড়ি। ভাঙন আতঙ্কে নদীপার থেকে অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছে তাদের ঘরবাড়ি।

ভাঙন প্রতিরোধে অনেক আকুতি, মানববন্ধন, স্মারকলিপি সহ নানা কর্মসূচি পালন করা হলেও কার্যত ভাঙন রোধে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি পানি উন্নয়ন বোর্ড ও বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) কর্তৃপক্ষ।

রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম আরটিভি নিউজকে বলেন, পদ্মার ভাঙনরোধে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। নতুন করে যে ভাঙন শুরু হয়েছে সেই ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা প্রদান করা হবে।

পদ্মা নদী ভাঙন রক্ষার কাজ শেষ হতে না হতেই রাজবাড়ীতে ৩৭৬ কোটি টাকার প্রকল্পে গত দুই দিনে কয়েক দফা ভাঙনে প্রায় ২৫০ মিটার এলাকার সিসি ব্লক ধসে গিয়ে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। এতে শহর রক্ষা বাঁধটি এখন হুমকির মুখে রয়েছে এবং বাঁধের ভিতরের হাজার হাজার বসত বাড়ি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ বলছে ত্রুটিপূর্ণ নকশার কারণে এমন ঘটনা ঘটছে। তবে আর যাতে ভাঙন না হয় সে বিষয়ে দ্রুত বালু ভর্তি দুই হাজার জিও ব্যগ ফেরার কাজ চলছে। অন্যদিকে স্থানীয়দের দাবি নিম্নমানের কাজ হওয়াতে বার বার ভাঙছে।

গত মঙ্গলবার থেকে রাজবাড়ী গোদারবাজার এলাকার এনজিএল ইট ভাটার কাছে প্রায় ১০০ মিটার বাঁধ ধসে যায়।

স্থানীয়রা আরটিভি নিউজকে জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে ওই এলাকার প্রায় ১৫০ মিটার এলাকা জুড়ে ঘূর্ণায়মান স্রোতে ব্লকসহ নদীতে বিলীন হয়ে যায়। ফলে রাজবাড়ী শহর রক্ষা বাঁধ ও ভাঙ্গন ঠেকাতে ২০১৮ সালে সাড়ে চার কিলোমিটারে ৩৭৬ কোটি টাকা ব্যয়ে গত মে মাসে কাজ শেষ হয়।

এমআই

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS