Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮

যশোর প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

  ০৪ জুন ২০২১, ১১:৩০
আপডেট : ০৪ জুন ২০২১, ১১:৫৬

ভিডিও কলে প্রেমিকা ‘বিয়ে করতে না বলায়’ প্রেমিকের আ'ত্মহত্যা

ভিডিও কলে প্রেমিকা ‘বিয়ে করতে না বলায়’ প্রেমিকের আত্মহত্যা
ফাইল ছবি

প্রায় ২ বছরের প্রেমের সম্পর্কের পর প্রেমিকা বিয়ের করতে না বলায় তার সঙ্গে ভিডিও কলে এসে এক যুবক গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (৩ জুন) চট্টগ্রামে নিজ কর্মস্থলে এ ঘটনা ঘটে। এর আগে ভিডিও কলে প্রেমিক জিহাদী তার প্রেমিকা মীমের কাছে তার শেষ ইচ্ছা জানতে চায়।

নিহত জিহাদী হাসান (২৬) যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার সাদিপুর গ্রামের তাহের আলীর ছেলে। তিনি চট্টগ্রামে একটি সিএন্ডএফ এজেন্সিতে চাকরি করতেন। প্রেমিকা সানজিদা হক মীম বেনাপোল পোর্ট থানার স্বরবাংহুদা গ্রামের সেলিমুল হকের মেয়ে।

শুক্রবার (৪ জুন) সকালে চট্টগ্রাম থেকে যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার সাদিপুর গ্রামে তার পরিবারের কাছে মরদেহ এসে পৌঁছায়।

জানা যায়, জিহাদী ভিডিও কলে রশি টানিয়ে মীমের নিকট তার শেষ ইচ্ছা জানতে চায়, তাকে গ্রহণ করবে কিনা না জানতে চায়। গ্রহণ না করলে করলে সে আত্মহত্যা করবে বলে জানিয়ে দেয়। মীম তার ভিডিও কলের সব দৃশ্য দেখেও জানায়, সে আত্মহত্যা করলে তার কিছু যায় আসে না। এমন কথা শোনার পর জিহাদী আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়।

জিহাদীর ছোট ভাই মেহেদী হাসান জানায়, দুই বছর তার ভাইয়ের সঙ্গে মীমের সম্পর্ক রয়েছে। আর মীম যশোরে লেখাপড়া করায় তাদের সাথে মোবাইল ফোনে কথা হত। তার ভাই চট্টগ্রাম থেকে মীমকে লেখাপড়ার খরচও দেয়। সম্প্রতি জিহাদী জানতে পারে মীম আরও ছেলেদের সঙ্গে প্রেম করে। এ বিষয় নিয়ে জিহাদী মীমের কাছে জানতে চায়। এ সময় জিহাদী বলে, 'তুমি আমাকে বল, আমাকে বিয়ে করবে কি না, আর না করলে আমি আত্মহত্যা করব।' মীম ওই রশি দেখেও তাকে বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে দেয় এবং আত্মহত্যা করলে তার কিছু যায় আসে না বলে জানায়। তারপর জিহাদী গতকাল বুধবার (২ জুন) চট্টগ্রামে নিজ অফিসে আত্মহত্যা করে।

সানজিদা হক মীম বলেন, জিহাদীর সঙ্গে আমার দীর্ঘদিন সম্পর্ক ছিল। সম্প্রতি জিহাদী সিগারেট খাচ্ছে এমন কথা শুনে অভিমান করে তাকে না বলা হয়েছে। এই জন্য সে আত্মহত্যা করবে?

মেয়ের বাবা সেলিমুল হক বলেন, আমি মেয়ের সঙ্গে সাদিপুর গ্রামের জিহাদী নামে একটি ছেলের সম্পর্ক আছে জানি। তবে তাদের সঙ্গে বিয়ে দিতে আমার কোনো আপত্তি ছিল না। কেন, কি কারণে সে আত্মহত্যা করেছে আমি জানি না।

এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জিএম

RTV Drama
RTVPLUS