logo
  • ঢাকা বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭

কেশবপুরে ২৩৫ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহিদ মিনার

কেশবপুর×শহিদ×মিনার×যশোর×প্রতিষ্ঠান×উপজেলা×সংস্কার×শিক্ষা×
ছবি সংগৃহীত

একুশে ফেব্রুয়ারি মহান শহীদ দিবস আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন ১৯৫২ সালের এই দিনে ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে পেয়েছি আমরা মাতৃভাষা তাদেরকে শ্রদ্ধা জানানোর জন্য প্রতি বছর একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করতে সারা দেশের মতো যশোরের কেশবপুর উপজেলার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি রয়েছে সরকারি নির্দেশনা কিন্তু উপজেলার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই নেই শহীদ মিনার কারণে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসসহ জাতীয় দিবসগুলোতে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে তাদের পড়তে হয় বিপাকে

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদরাসা কলেজ রয়েছে ২৯৪টি সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২৩৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই কোনও শহীদ মিনার যে ৫৯টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার আছে তার মধ্যে অনেকগুলিই নতুন করে সংস্কার করা হয়েছে

এদিকে, আন্তর্জাতিকভাবে শহীদ দিবসকে ২০ বছর আগে স্বীকৃতি দিলেও এবং শেখ হাসিনা সরকারের আমলে শিক্ষা খাতে ব্যাপক উন্নয়ন ঘটলেও এখনও কেন দুই শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই এই প্রশ্ন সাধারণ মানুষের

স্থায়ী শহীদ মিনারের অভাবে একুশে ফেব্রুয়ারি কেশবপুরের অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করবে শিক্ষার্থীরা এছাড়া অনেকে নিকটস্থ শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে যাবে

সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার প্রবির মিত্র জানান, কেশবপুর উপজেলায় মোট ১৫৮টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে যার মধ্যে মাত্র ১৪টি প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার আছে

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের হিসাব রক্ষক শ্যামল সিংহ আরটিভি নিউজকে জানান, কেশবপুর উপজেলায় মাধ্যমিক স্কুল ৭২টি, মাদরাসা ৫২টি কলেজ রয়েছে ১২টি এর মধ্যে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৩৮টি, কোনো মাদরাসায় এখনও শহীদ মিনার তৈরি হয়নি কলেজে সাতটি শহীদ মিনার রয়েছে

এই বিষয়ে আরও খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলায় কিন্ডারগার্টেন প্রতিবন্ধী যে ২৫টি বিদ্যালয় রয়েছে তার একটিতেও কোনও শহীদ মিনার নেই

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রবিউল ইসলাম বলেন, যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই সে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে শহীদ মিনার নির্মাণ করতে বলা হয়েছে এছাড়া প্রতিষ্ঠানের কমিটির সভাপতি প্রধান শিক্ষককে আবারও জোর তাগিদ দেওয়া হবে

ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম আরাফাত হোসেন জানান, যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই সে সকল প্রতিষ্ঠানে পর্যায়ক্রমে শহীদ মিনার তৈরির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে

জেবি

RTV Drama
RTVPLUS