logo
  • ঢাকা শনিবার, ০৬ মার্চ ২০২১, ২১ ফাল্গুন ১৪২৭

কুলিয়ারচরে বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন

ভোট×নির্বাচন×প্রার্থী×আচরণ×বাংলাদেশ×
ছবি আরটিভি নিউজ

কেন্দ্র থেকে এজেন্ট বের করে দেওয়া, মারধর ও প্রার্থীর সঙ্গে অসাদাচরণ করার অভিযোগ এনে ভোট শুরুর সাড়ে তিন ঘণ্টা পর কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদের প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নুরুল মিল্লাত।

আজ শনিবার বেলা ১১টা ৩০ মিনিটে পৌর শহরের বেতিয়াকান্দি এলাকায় সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

এই সময় তার সঙ্গে ছিলেন জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলম।

নুরুল মিল্লাত অভিযোগ করেন, ভোটের কয়েক দিন আগ থেকে নির্বাচনী পরিবেশের ভারসাম্য হারাতে শুরু করে। আজ ভোট শুরুর প্রথম ভাগ থেকেই ভোট জালিয়াতির নগ্নচিত্র প্রকাশ পায়। শুরুতে নৌকার প্রার্থীর লোকদের টার্গেট ছিল ধানের শীষের এজেন্টের দিকে। পরিকল্পনা অনুযায়ী আমার প্রায় সকল কেন্দ্র থেকে এজেন্টদের একে একে বের করে দেওয়া হয়। কুলিয়ারচর ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্র থেকে রাসেল মিয়া নামে আমার এক এজেন্টকে মারধর করা হয়।

একই কেন্দ্রে কুলিয়ারচর থানার একজন এসআই দ্বারা আমাকে অপমানিত হতে হয়েছে। কোনও কারণ ছাড়াই আমাদের দুই এজেন্টকে পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের সহায়ক শক্তি হিসেবে কাজ করেছে পুলিশ।

ইভিএম ভোট প্রক্রিয়া নিয়েও জালিয়াতি করা হয়েছে। প্রথমত কুলিয়ারচর অগ্রসর পৌরসভা না হলেও ইভিএম দেওয়া হয়েছে।

দ্বিতীয়ত সময়মতো প্রচারণা চালানো হয়নি। আর আজ ভোটের দিন মেয়রকে ভোট দিতে হচ্ছে প্রকাশ্যে।পরে কাউন্সিলদের ভোট দিতে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া দু'দিন আগে আওয়ামী লীগের ইশারায় থানায় মিথ্যা মামলা করা হয়েছে।

মামলায় ২৭জনকে আসামি করা হয়েছে। ভয়-ভীতি ছড়াতে মামলার আসামি বিএনপির পৌর আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শাফিউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাই, বর্জন ছাড়া আর কোনও উপায় নেই।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির সভাপতি শরীফুল আলম বলেন, এই সরকার অনেক আগ থেকে নির্বাচনী সংস্কৃতির বারোটা বাজিয়ে রেখেছে। ভোট বলতে কিছু নেই। সবই নষ্ট করে ফেলেছে।

জানা গেছে, কুলিয়ারচর পৌরসভার ভোট আজ বুধবার। ভোট হচ্ছে ইভিএম প্রক্রিয়ায়। মেয়র পদে প্রার্থী দুজন। নৌকা প্রতীকের হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছে সৈয়দ হাসান সারোয়ার। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। আর বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব নুরুল মিল্লাত। এর আগে তিনি দুবার এই পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে একবার জয় পান। একবার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানও ছিলেন।

এদিকে সকাল নয়টা ৩০ মিনিটে কুলিয়ারচর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, ভোটের দীর্ঘ সারি। বিশেষ করে প্রায় ৩০০ শতাধিক নারী ভোট দেবার জন্য সারিতে অপেক্ষা করছিলেন। পুরুষ সারিও ছিল বেশ লম্বা। কেন্দ্রটিতে মোট ভোট ২৪০০। এর মধ্যে পৌনে দশটায় চার নম্বর বুথে গিয়ে জানা যায় তখন পর্যন্ত ভোট দিয়েছেন ৪৪জন। ওই বুথে ভোট ৩৯০জন।

সহকারী প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ফখরু উদ্দিন আকন্দ বলেন, ভোট একটু ধীরগতির হলেও ভোটারদের আগ্রহ বেশ। একই কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা কাজী সোয়াইব আজমির জানালেন, সকাল ১০টা ১০ মিনিটের মধ্যে কেন্দ্রটিতে ভোট হয়েছে ২৯০।

কুলিয়ারচর ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে গিয়েও ভোটার উপস্থিতির একই চিত্র দেখা যায়।

ভোট বর্জনের কারণ জেনে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ইমতিয়াজ বিন মুছা বলেন, নির্বাচন বর্জন খুব দুঃখজনক।

জেবি

RTV Drama
RTVPLUS