logo
  • ঢাকা শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২ মাঘ ১৪২৭

জমে উঠেছে নেত্রকোনার দুই উপজেলার নির্বাচন

নির্বাচন×পৌর×নেত্রকোনা×ব্যালট×বাংলাদেশ×
আরটিভি নিউজ
দ্বিতীয় ধাপে নেত্রকোনার দুই পৌরসভায় জমে উঠেছে নির্বাচন। একটিতে হবে ইভিএমএ আরেকটিতে হবে ব্যালটে। তবে দুই পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন মত প্রকাশ করছেন ভোটাররা। ব্যালটে ভোট ডাকাতির আশঙ্কা ভোটারদের। প্রর্থীরা একে অপরের প্রতি অভিযোগের তীর ছুড়ছেন । যদিও নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু নির্বাচন উপহার দিতে অটুট। আচরণবিধি লঙ্গনের কথা স্বীকার করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

শীতের ভোর থেকে শুরু করে মাঝরাত পর্যন্ত ভোটের মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন দুই পৌরসভার প্রার্থীরা। ভোটারদের মন জয় করতে প্রতিশ্রুতির ফুলছুড়ি দিচ্ছেন প্রার্থীরা। মিটিং-মিছিল উঠোন বৈঠক আর মাইকের শব্দে কান যেন ঝালাপালা এ দুই পৌরবাসীর।

প্রচার প্রচারণায় বাধাসহ ইভিএম পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিএনপি ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীর। তবে ইভিএম নিয়ে কোন শংশয় নেই সরকারদলীয় মেয়র প্রার্থীর। ভোটারদের ইভিএম ভোট প্রদানের বিয়য়ে জানানো আর ভোট চাইতে পিছিয়ে নেই সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ও সাধারণ কাউন্সিলররা।

কেন্দুয়া পৌরসভার বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী, মো. শফিকুল ইসলাম শফিক, বলেন আমি আওয়ামী লোকজন দ্বারা খুবই নির্যাতিত। মনোনয়ননপত্র দাখিল করার দিন যুবলীগ সন্ত্রাসীরা আমার মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নিতে চেয়েছিল। আমি যেন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে না পারি। আমার প্রচার প্রচারণার পোস্টারও ছিঁড়ে ফেলা হচ্ছে।

কেন্দুযা পৌরসভার আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী  মো. আসাদুল হক ভূইয়া বলেন, আমি মেয়র থাকার সময় পৌর নাগরিকদের সকল সুযোগ সুবিধা দিয়ে এসেছি। অসমাপ্ত কাজগুলি শেষ করার জন্যই পৌরবাসী আমাকে ভোট দিয়ে এবারও নির্বাচিত করবে। আমার কোনও লোক বা সমর্থক বিএনপির প্রচারে  কখনোই বাধা প্রদান করেনি আর করবেওনা।

সিল ও ব্যালটে ভোট অনুষ্ঠিত হবে মোহনগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে। ঋণখেলাপি প্রমাণিত হওয়ায় নির্বাচনী মাঠে নেই বিএনপি প্রার্থী।  তবে ভোট যুদ্ধে জয়ের আশায় মাঠে আছে দুই স্বতন্ত্র প্রার্থী। স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিস্তর অভিযোগের তীর আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে পুন:রায় ভোটাররা ভোট দিয়ে নৌকাকে জয়যুক্ত করবে বলে দাবি আওয়ামী লীগ প্রার্থীর।

মোহনগঞ্জ পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তাহমীনা পারভীন বিথী বলেন,  আমি প্রচার প্রচারণায় সবসময় বাধার সম্মুখীন হচ্ছি। আমার কর্মীদেরকে আওয়ামী লীগ সমর্থকরা হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছে।  আমি রির্টানিং কর্মকর্তার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছি।

মোহগঞ্জ পৌরসভা আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট লতিফুর রহমান রতন বলেন, আমি গত তিন বারের মেয়র। জনগণ আমাকে ভালবাসে তাই আমাকে নির্বাচিত করে।  এবারও করবে। সতন্ত্র প্রার্থীর অভিযোগের ব্যাপারে কোনও সত্যতা নেই।

কেন্দুয়ায় ১০ দশমিক ৬৪ বর্গ কিলোমিটার ও মোহনগঞ্জে ৬ দশমিক ৯৪ বর্গ কিলোমিটার  পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন ১১০ জন প্রার্থী। এর মধ্যে কেন্দুয়ায় মেয়র ২, কাউন্সিলর ৩৯, সংরক্ষিত  আসনে ১৩ জন প্রার্থী আর মোহনগঞ্জে মেয়র ৩, কাউন্সিলর ৩৯ , সংরক্ষিত  আসনে ১৪ জন । আগামী ১৬ জানুয়ারি কেন্দুয়ার  ৯ ওয়ার্ডের ১৬ হাজার ২৫৬ জন  ও মোহগঞ্জের ৯ ওয়ার্ডে ২১ হাজার ৪ শত ৪ জন  ভোটার তাদের অধিকার প্রয়োগ করবেন।

জেবি

RTV Drama
RTVPLUS