logo
  • ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

পুলিশের গ্রেপ্তার বাণিজ্য বন্ধ চায় বুড়িমারীতে নিহত জুয়েলের পরিবার

The family of Jewel, who was killed in Burimari, rtv news
রংপুরে সংবাদ সম্মেলনে নিহত জুয়েলের পরিবার ও এলাকাবাসী
লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারীতে কুরান অবমাননার মিথ্যা অভিযোগ এনে জুয়েলকে পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় প্রকৃত আসামিদের গ্রেপ্তার, পুলিশের গ্রেপ্তার বাণিজ্য বন্ধ, পরিবারকে ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ চার দফা দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন নিহত জুয়েলের স্ত্রী ও বোনসহ স্বজনরা।

আজ শনিবার বেলা ১২ টায় রংপুর নগরীর শালবন এলাকায় অবস্থিত নিহত জুয়েলের বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন এলাকাবাসীর পক্ষে সাজ্জাদ হোসেন বাপ্পী।  বক্তব্য দেন নিহত জুয়েলের বড় বোন লিপি ও স্ত্রী জেসমিন আখতার।

উপস্থিত ছিলেন নিহত জুয়েলের দুই ছেলে ও মেয়ে। লিখিত অভিযোগে বলা হয়, গেলো ২৯ অক্টোবর বুড়িমারীতে কুরান অবমাননার মিথ্যা অপবাদ দিয়ে জুয়েলকে পিটিয়ে হত্যা করেছে; শুধু তাই নয় তার লাশ পুড়িয়ে ভস্মিভূত করা হয়েছে। একটি সভ্য সমাজে আর গণতান্ত্রিক ও আইনের শাসনের দেশে এরকম ঘটনা বিস্ময়কর অভাবনীয় ও উদ্বেগজনক।

ওই ঘটনার সময় পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, থানার ওসি, উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, উপস্থিত থাকলেও পশুদের নিবৃত করতে পারেননি। বরং উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বাবুল উসসাকিমূলক বক্তব্য দিয়ে পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত করে।

অন্যদিকে ইউপি সদস্য হাফিজুল ইসলাম জুয়েলের শার্টের কলার ধরে টেনে হেচড়ে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে নিয়ে যায়। কিন্তু এই মামলায় তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। সংবাদ সম্মেলনে আরও অভিযোগ করা হয়, ঘটনার সঙ্গে জড়িত দুজনকে গ্রেপ্তার করা হলেও বাকিদের গ্রেপ্তার করছে না পুলিশ। বরং নিরীহ মানুষকে গ্রেপ্তার করে গ্রেপ্তারের সংখ্যা বাড়ানো দেখাচ্ছে পুলিশ।

শুধু তাই নয় পুলিশ স্থানীয় বড় বড় ব্যবসায়ীদের কাছে লাখ লাখ টাকা দাবি করছে টাকা না দিলে মামলায় ফাঁসিয়ে দেবার হুমকি দিচ্ছে।

এ ঘটনাকে নিয়ে পুলিশ গ্রেপ্তার বাণিজ্য করছে বলে অভিযোগ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ৪ দফা দাবি পেশ করা হয় এগুলো হলো, জুয়েলের স্ত্রী জেসমিন আক্তার মুক্তাকে একটি সরকারি চাকরিতে নিয়োগ প্রদান, হত্যাকারী খুনিরা যারা এখনও গ্রেপ্তার হয়নি তাদের গ্রেপ্তারে চলমান প্রক্রিয়া জোরদার করা, জুয়েল হত্যা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে সম্পন্ন করা এবং ন্যায় বিচারের স্বার্থে জুয়েল হত্যার মামলাটি রংপুরে স্থানান্তরিত করা।

সংবাদ সম্মেলনে এলাকাবাসীর পক্ষে বক্তব্য দেন জোবায়দুল ইসলাম বুলেট, অ্যাডভোকেট অলক নাথ।

জেবি

RTVPLUS