‘আসাদ এখনও সালমার লগে কথা কয়, তাই ওর পুরুষাঙ্গ কাটছি’

প্রকাশ | ১৪ নভেম্বর ২০২০, ১৯:২৪ | আপডেট: ১৪ নভেম্বর ২০২০, ১৯:৩৮

রাজবাড়ী প্রতিনিধ, আরটিভি নিউজ
ছবি সংগৃহীত

রাজবাড়ীতে রিক্তা নামের এক গৃহবধূ ব্লেড দিয়ে তার স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছেন। রিক্তার দাবি তার স্বামী আসাদ মণ্ডল এখনও প্রথম স্ত্রী সালমার সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলায় তিনি এই নৃশংস কাণ্ড ঘটিয়েছেন। রাজবাড়ীর পাংশা পৌর এলাকার বিষ্ণুপুর গ্রামে শুক্রবার সকালের দিকে ঘটনাটি ঘটে। বিষয়টি সন্ধ্যার দিকে জানাজানি হয়। ঘটনার পর অভিযুক্ত রিক্তাকে মারধর করেন আত্মীয়রা। বর্তমানে দুজনেই পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন। আসাদ মণ্ডল একই গ্রামের আব্দুস সালাম মণ্ডলের ছেলে।

জানা যায়, আসাদ মণ্ডল প্রথম স্ত্রী সালমা খাতুনের সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ হওয়ার দুই বছর পর রিক্তা খাতুনকে বিয়ে করেন। কিন্তু আসাদ মণ্ডল নিয়মিত মোবাইল ফোনে তার প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন। বিষয়টি দ্বিতীয় স্ত্রী রিক্তা খাতুন কখনোই ভালোভাবে নেয়নি। এ নিয়ে তাদের দাম্পত্য কলহ চলছিল। বিষয়টি নিয়ে গেলে বৃহস্পতিবার রাতে উভয়ের মধ্যে তুমুল ঝগড়া হয়। গতকাল শুক্রবার সকালের দিকে স্বামী আসাদ যখন ঘুমে অচেতন তখন রিক্তা খাতুন ধারালো ব্লেড দিয়ে তার পুরুষাঙ্গ কেটে দেয়। লজ্জায় আসাদ বিষয়টি কাউকে বলেনি। পরে ব্যথার যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে পরিবারের সদস্যদের বিষয়টি জানালে তাকে পাংশা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করা হয়। এ সময় এলাকাবাসী বিষয়টি জানতে পেরে রিক্তা খাতুনকে মারধর করে। তাকেও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করা হয়।

রিক্তা খাতুনের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, আসাদ তার সাবেক স্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথা বলায় বিষয়টি আমি কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলাম না। এ কারণে এ কাজ করেছি।

পাংশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দাম্পত্য কলহের জের ধরে এ ঘটনা ঘটেছে। স্বামী-স্ত্রী দুজনেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেবি