logo
  • ঢাকা রোববার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

পঞ্চগড়ে গৃহবধূকে মাইক্রোবাসে ধর্ষণ, আটক ৪

rape, women,
পঞ্চগড় জেলা কারাগার
পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নে ২০ বছর বয়সী এক গৃহবধূকে বিয়ের প্রলোভনে মাইক্রোবাসে রাতভর ধর্ষণের অভিযোগে উঠছে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূ মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) রাতে বোদা থানায় বাদী হয়ে দুই ধর্ষকসহ চারজনকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন।

মামলার পরই মঙ্গলবার রাতে পুলিশ ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী জাহিদুল ইসলাম রতনকে (২৫) আটক করে পরে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী অপর ৩ আসামীকেও আটক করে বোদা থানা পুলিশ।  এসময় মাইক্রোবাসটিও জব্দ করে পুলিশ।
জানা গেছে, ধর্ষণের দায়ে আটক মামলার প্রধান আসামী হলেন জেলার বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের সোনাপাড়া এলাকার জাহিদুল ইসলাম রতন (২৫), একই এলাকার  অটোরিকশা চালক আমিরুল ইসলাম (৩০) পঞ্চগড় পৌরসভার  নিমনগড় এলাকার  মাইক্রোবাস চালক শহিদুল ইসলাম (২৭),  জেলার সদর উপজেলাধীন ধাক্কামারা ইউনিয়নের শিকারপুর এলাকার নূর আলম (২৪)। মামলার চার আসামীর মধ্যে জাহিদুল ইসলাম রতন ও মাইক্রোবাস চালক শহিদুল ইসলামকে ধর্ষক হিসেবে ও অপর দুই আসামী  আমিরুল  ও নুর আলমকে ধর্ষণের সহযোগী হিসেবে অভিযুক্ত করা হয়েছে।

বুধবার (২৮ অক্টোবর) দুপুরে ধর্ষণ মামলার আটক ওই চার আসামীকে পঞ্চগড়  জেলা দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ প্রদান করে।

মামলার অভিযোগ  সূত্রে জানা যায়, জেলার বোদা উপজেলা ময়দানদিঘী ইউনিয়নের ওই গৃহবধূর সাথে রং নাম্বারে একই এলাকার যুবক জাহিদুল ইসলাম রতনের সাথে পরিচয় হলে রতন প্রায় ওই গৃহবধূকে ফোন করে খোঁজ খবর নিতো। এদিকে গত ২৬ অক্টোবর (সোমবার) দুপুরে ওই গৃহবধুর সাথে তার স্বামীর সাথে হঠাৎ  ঝগড়া সৃষ্টি  হলে  বিকেলে রতন নামে ওই যুবক গৃহবধূকে ফোন করে বিয়ের প্রস্তাব দিলে ওই গৃহবধূও বিয়ের প্রলোভনে পড়ে তার স্বামীর বাড়ি থেকে বের হয়ে ময়দানদিঘী বিআরটিসি  কাউন্টারে যায় এবং সেখানে রতনের সাথে দেখা হলে রতন বিয়ে করার জন্য কাজী অফিসে  নিয়ে যাওয়ার কথা বলে আমিরুলের অটোরিকশায় করে বোদা বাজার হয়ে পঞ্চগড় বীর মুক্তিযোদ্ধা  সিরাজুল  ইসলাম  রেলওয়ে স্টেশনে নিয়ে যায়। পরে সেখানে রাতের খাবারের পর  গভীর টাতে শহিদুলের মাইক্রোবাসে  তুলে নিয়ে রতন ওই গৃহবধূকে মালাদঙ এলাকায় এক বন্ধুর বাড়িতে যায়  সেখানে সুযোগ  না পেয়ে পরে পঞ্চগড় মৈত্রী  ফিলিং স্টেশনে সামনে গিয়ে মাইক্রোবাস ধামিয়ে  আমিরুল ও  নূর আলমের পাহারায় রতন ওই গৃহবধূকে জোরপূর্বক  ভাবে ধর্ষণ করে এবং পরে ওই গৃহবধূ  গৃহবধূ চিৎকার করলে তার মুখ চেপে রেখে মাইক্রোবাস চালক শহিদুলও গৃহবধূকে ধর্ষণ করে।  পরে সেদিন ভোরে ধর্ষক রতন ওই গৃহবধূকে মোটরসাইকেল যোগের বোদা বাসস্টানের রেখে পালিয়ে যায় এবং ওই গৃহবধুর স্বামী খবর পেয়ে সাথে সাথে ওই গৃহবধুকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়।

এবিষয়ে বোদা থানার ওসি (তদন্ত)  আবু সায়ে মিয়া জানান, ওই গৃহবধূ  বাদী হয়ে রতন সহ ৪ জনের নামে থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের সংশোধন ২০২০ অধ্যাদেশে অপহরণ ও ধর্ষণের মামলা করলে মামলার পরপরই তাদের  আটক করা হয়েছে।আসামীদের আদালতের  হাজির করা হলে আদালত তাদের জেলহাজতে পাঠানো নির্দেশ দিয়েছে। তবে ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূর মেডিকেল পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।
এফএ
 

RTVPLUS