logo
  • ঢাকা রোববার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২০, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

রায়হানের বাড়িতে পুলিশ সদর দপ্তরের তদন্ত দল

An investigation team from the police, headquarters, rtv news
ছবি সংগৃহীত
সিলেট বন্দরবাজার ফাঁড়ির নির্যাতনে রায়হান আহমদ নিহতের ঘটনায় পুলিশ সদর দপ্তরের তদন্ত কমিটির সদস্যরা সিলেট এসেছেন। 

গতকাল মঙ্গলবার রাতে তদন্ত দলের সদস্যরা নগরীর আখালিয়ায় রায়হানের বাড়িতে যান।

পরে রায়হানের বাড়ি থেকে বেরিয়ে তদন্ত কমিটির প্রধান এআইজি মোহাম্মদ আয়ুব বলেন, এসআই আকবরের পালিয়ে যাওয়ার সঙ্গে আর কোনও পুলিশ সদস্য জড়িত আছে কিনা এ ব্যাপারে তদন্ত করতে আমরা এখানে এসেছি।

এ ব্যাপারে রায়হানের পরিবারের কাছে কোনও তথ্য আছে কিনা তা জানতেই এখানে আসা। দুই একদিনের মধ্যেই এই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরির্দশক (এসআইজি) মোহাম্মদ আয়ুবের নেতৃত্বে রায়হানের বাড়িতে গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা।

প্রসঙ্গত,  ১১ অক্টোবর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে পুলিশের নির্যাতনের শিকার হন রায়হান আহমদ (৩৪)। পরে রোববার সকালে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে তিনি মারা যান। রায়হান সিলেট নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার মৃত রফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি নগরীর রিকাবিবাজার স্টেডিয়াম মার্কেটে এক চিকিৎসকের চেম্বারে কাজ করতেন। এ ঘটনায় ১২ অক্টোবর রাতে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে হেফাজতে মৃত্যু আইনে সিলেট কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন রায়হানের স্ত্রী।

এরপর পুলিশের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হলে রায়হানকে ফাঁড়িতে এনে নির্যাতনের প্রাথমিক প্রমাণ পায় কমিটি। এই তদন্ত কমিটির সুপারিশে বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনর্চাজ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, তেীহিদ মিয়া ও টিটু চন্দ্র দাসকে সাময়িক বরখাস্ত এবং এসআই আশেক এলাহী, এসআই কুতুব আলী ও কনস্টেবল সজীব হোসেনকে প্রত্যাহার করা হয়।

এ মামলায় মঙ্গলবার পুলিশ কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাসকে গ্রেপ্তার করে রিমাণ্ডে নিয়েছে পিবিআিই।

তবে মূল অভিযুক্ত এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়া পালিয়ে গেছেন।

পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সহায়তায় আকবর পালিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি গঠন করে পুলিশ সদর দপ্তর।

এদিকে সিলেটের বিভিন্ন মহলে থেকে রায়হান হত্যার প্রতিবাদ ও প্রধান অভিযুক্ত পুলিশের এসআই আকবরকে গ্রেপ্তারের এবং হত্যাকারীদের বিচারের মাধ্যমে শাস্তি প্রদানের দাবিতে প্রতিদিনই সিলেটে নানা কর্মসূচি পালন অব্যাহত রয়েছে। 

জিএম/জেবি

RTVPLUS