‘আসাদুর স্যারের কুপ্রস্তাবে রাজি না হলে আনসারে থাকা হবে না’

প্রকাশ | ১২ অক্টোবর ২০২০, ২১:০০

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ
কালীগঞ্জ উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আসাদুর রহমান লিটন

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলায় আসন্ন দুর্গাপূজায় মন্দিরে দায়িত্ব পালন করতে আনসার সদস্যদের কাছ থেকে ৩০০ টাকা করে ঘুষ নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়াও আনসার সদস্যদের প্রশিক্ষণের সার্টিফিকেট জালিয়াতি, টাকার মাধ্যমে ডিউটি প্রদান ও নারী সদস্যদের অফিসে ডেকে এনে আপত্তিকর প্রস্তাব দেয়া যেন নিত্যদিনের ঘটনা।

সরকারি নির্দেশনা না থাকলেও অফিসের প্রয়োজনে এ টাকা নেয়া হচ্ছে বলে বিষয়টি নিজেই নিশ্চিত করেছেন কালীগঞ্জ উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আসাদুর রহমান লিটন।

কালীগঞ্জে এবার ৮৪টি পূজামণ্ডপে আনসার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। প্রতিটি মন্দিরে ছয়জন করে নারী ও পুরুষ সদস্য নিয়োজিত থাকবেন বলেও জানান তিনি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, আসন্ন দুর্গাপূজায় ৮৪টি পূজামণ্ডপে ডিউটি দেয়ার নাম করে আনসার সদস্যদের কাছ থেকে মাথাপিছু ৩০০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। প্রশিক্ষণের সার্টিফিকেট জালিয়াতি করে নারী সদস্যদের বিভিন্ন ওয়ার্ডের দলনেত্রী বানানো হয়েছে। এছাড়াও ইউনিয়নে বাড়ি থাকা সত্ত্বেও পৌরসভার ওয়ার্ড দলনেত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

আনসার-ভিডিপি অফিস কালীগঞ্জ নামে একটি ফেসবুক আইডি খুলে ম্যাসেঞ্জারে নারী সদস্যদের বিভিন্ন আপত্তিকর প্রস্তাব দেন কালীগঞ্জ উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আসাদুর রহমান। ওই আইডি তিনি নিজেই পরিচালনা করেন বলে এই প্রতিবেদকের কাছে স্বীকার করেছেন।

নিজ অফিসেই এক ওয়ার্ডের দলনেত্রীকে জড়িয়ে ধরে তোলা একটি ছবি ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। এছাড়াও অনেক আনসার সদস্যকে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে কুপ্রস্তাব দেয়ার স্ক্রিনশট এই প্রতিবেদকের হাতে এসেছে।

আরও জানা গেছে, এলাকার বাসিন্দারা নিজ নিজ ইউনিয়ন অথবা ওয়ার্ডেও দলনেত্রী হতে পারবেন। কিন্তু এক্ষেত্রে কোনও নির্দেশনাই মানা হয়নি। রাবেয়া খাতুন নামে এক নারী আনসার সদস্যের বাড়ি উপজেলার রাখালগাছি ইউনিয়নে কিন্তু তাকে পৌরসভার পাঁচ নম্বর ওয়ার্ডের দলনেত্রী বানানো হয়েছে।  এক নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা চম্পা খাতুনকে শ্রীরামপুর এলাকার দলনেত্রী, বলিদাপাড়া এলাকার সাবিনা ইয়াসমিনকে আড়পাড়া এলাকার দলনেত্রী বানানো হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ওয়ার্ড দলনেত্রী জানান, আনসার-ভিডিপি অফিস কালীগঞ্জ এই আইডি আসাদুর স্যার নিজেই পরিচালনা করেন। বিভিন্ন সময় তিনি কুপ্রস্তাব দেন। উপায় না পেয়ে আপনাদের কাছে এসেছি। তার কুপ্রস্তাবে রাজি না হলে আনসারে থাকা হবে না। এছাড়াও পূজার ডিউটি পেতে ৩০০ করে টাকা দিতে হচ্ছে।

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আসাদুর রহমান বলেন, অফিসের প্রয়োজনে মাথাপিছু ৩০০ টাকা করে নেয়া হচ্ছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারি নির্দেশনা নেই, প্রয়োজনে নেয়া হচ্ছে।

নারীদের কুপ্রস্তাব দেয়ার বিষয়ে আসাদুর রহমান বলেন, আনসার-ভিডিপি অফিস কালীগঞ্জ নামে একটি ফেসবুক আইডি আমি নিজেই চালাই। কারও সঙ্গে আমার জড়িয়ে ধরে কোনও ছবি নেই।

আনসার ও ভিডিপির ঝিনাইদহ জেলা কমান্ড্যান্ট সনজয় কুমার সাহা বলেন, ডিউটি নিতে টাকা দিতে হবে এমন কোনও নির্দেশনা নেই। যারা টাকা দিচ্ছেন বা নিচ্ছেন এটা তাদের ব্যাপার। টাকা নেয়ার ব্যাপারে অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এক এলাকার বাসিন্দা অন্য এলাকার দলনেত্রী বা দলনেতা হতে পারবেন না। আর কোনও দলনেত্রীর সঙ্গে এমন অনৈতিক প্রস্তাবের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেবি