logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭

তিন দিনেও রিমান্ডে নেয়া যায়নি প্রদীপ-লিয়াকতকে

  টেকনাফ প্রতিনিধি, আরটিভি নিউজ

|  ০৯ আগস্ট ২০২০, ২০:২৫ | আপডেট : ০৯ আগস্ট ২০২০, ২০:৫৪
Pradeep and Liaquat could not be remanded for three days
মামলার এক নম্বর আসামি বাহারছঁড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলী, দুই নম্বর আসামি টেকনাফ থানা পুলিশের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ
সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় কক্সবাজারের টেকনাফ থানার পুলিশের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ তিন আসামির সাতদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। একইসঙ্গে বাকি চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন বিচারক। নির্দেশনা মতে, সেই চার আসামিকে কারা ফটকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হলেও মূল অভিযুক্ত তিনজনকে গত তিন দিনেও রিমান্ডে নেয়া যায়নি। কেন নেয়া যায়নি, সে বিষয়ে কোনো বক্তব্য দিতে চাননি তদন্তের ভার পাওয়া সংস্থার কেউ।

রিমান্ডের আদেশ পাওয়া আসামিরা হলেন, মামলার এক নম্বর আসামি বাহারছঁড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলী, দুই নম্বর আসামি টেকনাফ থানা পুলিশের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও তিন নম্বর আসামি পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) নন্দ দুলাল রক্ষিত। তাদের প্রত্যেকের সাতদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

পাশাপাশি সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন ও আব্দুল্লাহ আল মামুনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

শনিবার আদালতের আদেশ কপি কারাগারে এসে পৌঁছায় বলে জানান কারাগারের সুপার মো. মোকাম্মেল হোসেন। তিনি জানান, নথিপত্র আসার পর র‌্যাব সদস্যরা চার আসামিকে কারা ফটকে শনিবারই জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেন। রোববারও দ্বিতীয় দফা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। কিন্তু অপর তিন আসামিকে এখনো রিমান্ডের জন্য নিয়ে যাননি।

রিমান্ডের আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে বিলম্ব সম্পর্কে জানতে কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর ইনচার্জ আজিম আহমেদের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও সংযোগ পাওয়া যায়নি। তাকে না পেয়ে র‌্যাব-১৫ এর উপ-অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসানকে ফোন করা হয়। তার সঙ্গেও যোগাযোগ করা যায়নি। তিনি লাইন কেটে দিলে পরে তাকে ক্ষুদে বার্তা পাঠানো হলেও কোনো সারা পাওয়া যায়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক র‌্যাবের এক কর্মকর্তা বলেছেন, তদন্ত কর্মকর্তা তার সুবিধা মতো সময়ে আসামিদের রিমান্ডে নেবেন। স্পর্শকাতর মামলা তাই সবকিছু গুছিয়ে তারপরই জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে হয়তো। আবার ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বেশ অডিও ক্লিপও ইতোমধ্যে গণমাধ্যমে প্রচার হয়েছে। উঠে এসেছে নানান তথ্যও। সেসব বিষয় খতিয়ে দেয়া হচ্ছে বলেও উল্লেখ করে তিনি।

উল্লেখ্য, সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় কক্সবাজারের টেকনাফ থানা পুলিশের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ সাত জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজারের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. হেলাল উদ্দিনের আদালতে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন র‌্যাব-১৫ এর সেকেন্ড ইন কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান। শুনানি শেষে ১, ২ ও ৩ নম্বর আসামির সাতদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর ও মামলার অন্য চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন বিচারক। একইসঙ্গে পলাতক দুই আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি ফরিদুল আলম বলেছেন, গ্রেফতারের পর আদালতে আনা হলে জামিনের আবেদন করেন ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ সাত আসামি। শুনানি শেষে জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কক্সবাজার কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক।

এসএ/সি

RTVPLUS
bangal
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ৩৫৫৪৯৩ ২৬৫০৯২ ৫০৭২
বিশ্ব ৩,২১,৯৬,৬৫৫ ২,৩৭,৫১,১৩৪ ৯,৮৩,৬০৯
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • দেশজুড়ে এর সর্বশেষ
  • দেশজুড়ে এর পাঠক প্রিয়