smc
logo
  • ঢাকা বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭

‘ভাইরাল বোমা’ এমন অপবাদের বোঝা কেন বইবে বাংলাদেশ 

  সৈয়দ আশিক রহমান

|  ০৯ জুলাই ২০২০, ২১:১৫ | আপডেট : ১০ জুলাই ২০২০, ১৯:৫৯
corona
সৈয়দ আশিক রহমান
বাংলাদেশিরা ফিরতে শুরু করেছেন ইউরোপের কর্মস্থলে। এমন খবর গণমাধ্যমে প্রচার হওয়ার পর অনেকের মাঝেই নিশ্চয়ই স্বস্তি ফিরে আসে। কিন্তু এতো অল্প সময়ের মাঝেই যে তা অস্বস্তিতে পরিণত হবে তা হয়তো কারও ধারণার মধ্যেই ছিল না।গত সোমবার সব রকমের স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও করোনাভাইরাস নেগেটিভ রিপোর্ট হাতে নিয়েই ২২৫ জন বাংলাদেশি ইটালিতে পৌঁছে।কিন্তু তার মাঝে ২১ জন যাত্রী করোনা পজেটিভ হওয়া এবং এর আগে আরও কয়েকটি বিশেষ ফ্লাইটে ইটালি যাওয়া বেশ কয়েকজন পজেটিভ হওয়ায় এখন বাংলাদেশের ভুয়া করোনা সনদের খবরটি ঘুরছে আন্তর্জাতিক প্রভাবশালী গণমাধ্যমগুলোতে।

এতোদিন করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ ও তা প্রতিরোধে বাংলাদেশ সম্পর্কে কোনো নেতিবাচক রিপোর্ট বিশ্বগণমাধ্যমে প্রচার হয়নি। বরং দুর্যোগকালে সরকারের নেয়া বেশ কিছু উদ্যোগের  প্রশংসা করে রিপোর্ট হয়েছে।কিন্তু যখন ইউরোপের বাজার খুলতে শুরু করেছে, বিশ্ব অর্থনীতির চাকা আবারও সচল হচ্ছে তখন এই ধরনের রিপোর্ট শুধু বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্নই করেনি, বরং এখন বিশ্ব বাজারে যে প্রতিযোগিতা শুরু হবে তা থেকে অনেকটাই পিছিয়ে দেবে। 

ইটালি ইতোমধ্যেই বাংলাদেশের সঙ্গে ফ্লাইট স্থগিত করেছে। অথচ ইউরোপের মাঝে ইটালিতেই সবচেয়ে বেশি বৈধ প্রবাসী বাংলাদেশি থাকেন।এছাড়া তৈরি পোশাক রপ্তানিসহ মেশিনারিজ, কৃষি ও অন্যান্য বিষয়ে ইটালির সাথে বড় অংকের বাণিজ্য সম্পর্ক রয়েছে। 

শুধু ইটালি নয় ভুয়া করোনাভাইরাস সনদের কারণে ফ্লাইট স্থগিত করেছে দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানও। গত এপ্রিলে প্রবাসী বাংলাদেশিদের জাপান ফেরাতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ভাড়া করা তিন-চারটি চার্টার্ড ফ্লাইটে যেসব যাত্রী জাপান পৌঁছে তাদের হাতে করোনা নেগেটিভ সনদ থাকলেও সেখানে ৪ জনের পজেটিভ আসে। এর পরই বাংলাদেশ থেকে বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনার ক্ষেত্রে মে মাসের প্রথমদিকে শর্ত আরোপ করে দেশটি।একই রকম ঘটনা দক্ষিণ কোরিয়াগামী চার্টার্ড ফ্লাইটের যাত্রীদের ক্ষেত্রেও।করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়ে গেলেও দক্ষিণ কোরিয়ায় পৌঁছার পর পজেটিভ হয় ৬ বাংলাদেশি। 

বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী হওয়ায় আকাশপথে যোগাযোগ বন্ধ করেছে তুরস্ক। গত ৩ জুলাই থেকে ইস্তাম্বুল-ঢাকা রুটে ফ্লাইট চালুর ঘোষণা দিলেও পরে তা স্থগিত করা হয়। বর্তমান পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশিদের জন্য ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা রয়েছে সউদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, বাহরাইন, ওমানসহ মধ্যপ্রাচ্যের প্রায় সব দেশের সঙ্গে। আর এসব দেশেই রয়েছে বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় শ্রম বাজার।আমিরাতের সাথে বিমানের ফ্লাইট ৬ জুলাই থেকে শুরুর ঘোষণা দিয়েও পরে তা ৩০ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত করা হয়।

শুধু তাই নয়, করোনার কারণে যখন সব দেশের সঙ্গে ফ্লাইট বন্ধ করা হয় তখনও চীনের সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু ছিল। কিন্তু গত ১১ জুন ঢাকা থেকে চীনের গুয়াংঝুতে চায়না সাউদার্নের ফ্লাইটে যাওয়া ১৭ জন যাত্রীকে পজিটিভ শনাক্ত হয়। যার পরিপ্রেক্ষিতে চায়না সাউদার্নের ঢাকার ফ্লাইট চার সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। 
এসব ভুয়া করোনাভাইরাসের সনদের ফলে দেশের কোভিড-১৯ চিকিৎসা ব্যবস্থায় বাংলাদেশের সক্ষমতাকে শুধু প্রশ্নবিদ্ধিই করেনি, দেশের ভাবমূর্তিকেও ভিষণভাবে ক্ষুন্ন করেছে। 

এছাড়া মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশই লকডাউন তুলে নিচ্ছে, স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে জীবনযাত্রা। সে সময় বাংলাদেশ সম্পর্কে এমন নেতিবাচাক খবর শ্রমবাজারে বড় প্রভাব পড়ার যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। ২২৫ যাত্রীর মাঝে ২১ জন পজেটিভ হওয়ার পর ইটালির লাৎজিও অঞ্চলের একজন ঊর্ধ্বতন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে বলেছেন আমরা একটি ‘ভাইরাল বোমা’ নিষ্ক্রিয় করেছি।তার এই বক্তব্য বিশ্বগণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হয়। 

অথচ এসব ঘটনার পেছনে জড়িত রিজেন্ট গ্রুপের মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের মতো কিছু সুবিধাবাদী ও উচ্চাভিলাষী। যাদের কাছে মানবতা, দেশ ও রাষ্ট্রের চেয়ে বড় বিষয় ক্ষমতা ও বিত্ত বৈভব। সাহেদ করিমরা কখনো কর্নেল, কখনো মেজর বা কখনো প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এপিএস নামে, বেনামে এসব অপকর্ম করে যান। তাদের অপকর্মের জন্য ভিন দেশের লোকেরা আজকে বাংলাদেশিদের দিকে আঙুল তুলে বলতে পারে ‘ভাইরাল বোম’। কেন এমন অপবাদের বোঝা বইবে বাংলাদেশ। 

লেখক: সৈয়দ আশিক রহমান

প্রধান সম্পাদক আরটিভি অনলাইন ও সিইও আরটিভি 

RTVPLUS
bangal
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ৪০১৫৮৬ ৩১৮১২৩ ৫৮৩৮
বিশ্ব ৪,৩৮,৪৪,৫১০ ৩,২২,১৩,৭৫১ ১১,৬৫,৪৫৯
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • নির্বাচিত কলাম এর সর্বশেষ
  • নির্বাচিত কলাম এর পাঠক প্রিয়