logo
  • ঢাকা বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭

শর্ত পূরণে ব্যর্থ দলগুলোর নিবন্ধন বাতিলের পথে হাঁটছে ইসি

EC, way, cancel, registration, parties, failed, meet, conditions
শর্ত পূরণে ব্যর্থ দলগুলোর নিবন্ধন বাতিলের পথে হাঁটছে ইসি

শর্ত পূরণে ব্যর্থ হলে রাজনৈতিক দলগুলোর নিবন্ধন বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইতোমধ্যে গত ১৪ ডিসেম্বর প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) নিবন্ধন বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করে ইসি। আগামীকাল মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল ‘জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা’কে ডাকা হয়েছে।

দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর বিষয়ে ইসির বিশেষ টিম গঠন করে প্রাপ্ত তথ্য ও দলগুলোর মাঠপর্যায়ের কার্যক্রম যাচাই-বাছাই করছে। তাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে শর্ত পূরণে ব্যর্থ দলগুলোর নিবন্ধন বাতিল করা হবে। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নতুন রাজনৈতিক দলের নিবন্ধনের পাশাপাশি বিদ্যমান দলগুলো নিবন্ধনের শর্ত প্রতিপালন করে কিনা, তা যাচাই করছে ইসি।

ইসি সূত্র জানায়, দলগুলোর প্রতিবেদন নিয়ে কমিশন কেন্দ্রীয়ভাবে তদন্ত দল গঠন করে তাদের মাঠ প্রশাসনের সহযোগিতায় দলগুলোর নির্বাচিত কমিটি ও মাঠ অফিসের কার্যক্রমের তথ্য যাচাই করে। দলগুলোর দেওয়া তথ্য ও মাঠের চিত্রের মধ্যে গরমিল পাওয়া গেলে কমিশন ওই দলগুলোর নিবন্ধন বাতিলের কার্যক্রম শুরু করে। এক্ষেত্রে কারণ দর্শানোসহ যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষ করে তাদের নিবন্ধন চূড়ান্তভাবে বাতিল করা হয়।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০ (এইচ) ধারায় কোন কারণে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিল হবে, তা উল্লেখ করা হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম রয়েছে ইসিতে চাহিদা মোতাবেক তথ্য না দেওয়া ও আরপিও ৯০ (বি) ধারা মতে যেসব শর্তে নিবন্ধন প্রাপ্ত হয়েছে, তা প্রতিপালন না করা।

আরপিও’র শর্তগুলো হলো: দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যেকোনও জাতীয় নির্বাচনের আগ্রহী দলটিতে যদি অন্তত একজন সংসদ সদস্য থাকেন। যেকোনও একটি নির্বাচনে দলের প্রার্থী অংশ নেওয়া আসনগুলোয় মোট প্রদত্ত ভোটের ৫ শতাংশ পায়। এবং দলটির যদি একটি সক্রিয় কেন্দ্রীয় কার্যালয়, দেশের কমপক্ষে এক তৃতীয়াংশ (২১টি) প্রশাসনিক জেলায় কার্যকর কমিটি এবং অন্তত ১০০টি উপজেলা/মেট্রোপলিটন থানায় কমপক্ষে ২০০ ভোটারের সমর্থন সংবলিত দলিল থাকতে হবে।

জানা গেছে, সম্প্রতি কমিশন বৈঠকে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়। এক্ষেত্রে বেশ কিছু দল রয়েছে তারা নিবন্ধন পেলেও কোনও নির্বাচনে অংশ নেয় না। কেউ কেউ নিবন্ধন টিকিয়ে রাখার জন্য জাতীয় নির্বাচনে দুই/একটি আসনে প্রার্থী দেয়। পরে এ বিষয়ে কমিশন জানায়, নির্বাচন করার জন্যই রাজনৈতিক দলের নিবন্ধনই দেওয়া হয়। কিন্তু নিবন্ধন পেয়ে নির্বাচনে না গেলে তাদের নিবন্ধিত থাকার প্রয়োজন পড়ে কেন?

রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধিত থাকার শর্ত পূরণ করতে না পারলে নিবন্ধন বাতিলের পথে হাঁটছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সম্প্রতি শর্ত পূরণ করতে না পারায় একটি রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিলও করেছে ইসি।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) ইসির জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব রৌশন আরা বেগম সই করা এক নথিতে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) বিকেল ৩টায় নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল ‘জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা’ নামের দলের নিবন্ধন বাতিলের বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের মিডিয়া সেন্টারে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। এ শুনানিতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, নির্বাচন কমিশনাররা এবং জ্যেষ্ঠ সচিব উপস্থিত থাকবেন।

ইসির তথ্যমতে, ২০০৮ সালের ২০ নভেম্বর জাগপাকে নিবন্ধন দিয়েছিল ইসি। দলটির প্রতীক ‘হুক্কা’। এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান এবং সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান। রাজধানীর মোহাম্মদপুরের আসাদগেট রোডের সড়ক-১, বাড়ি-২ এ দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়।

প্রসঙ্গত ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন প্রথা চালু করে ইসি। প্রথম বছরে ১১৭টি আবেদন জমা পড়ে। এর মধ্যে শর্ত পূরণ সাপেক্ষে ৩৯টি দল নিবন্ধন পায়। এর মধ্যে স্থায়ী সংশোধিত গঠনতন্ত্র দিতে না পারায় ২০০৯ সালে ফ্রিডম পার্টির নিবন্ধন বাতিল করে ইসি। আর আদালতের আদেশে ২০১৩ সালে জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণা করা হয়। এছাড়া ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাংলাদেশ মুসলিম লীগ (বিএমএল) নামে নতুন একটি দলের নিবন্ধন দেওয়া হয়।

এফএ

RTV Drama
RTVPLUS