logo
  • ঢাকা শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৬

কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগিংয়ের শিকার ২ শিক্ষার্থী হাসপাতালে

জাককানইবি প্রতিনিধি (ময়মনসিংহ)
|  ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২৩:৪৭ | আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২৩:৫০
কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় র‌্যাগিং ২ শিক্ষার্থী
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় (জাককানইবি) এর প্রথম বর্ষের দুই শিক্ষার্থী র‌্যাগিংয়ের শিকার হয়ে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের চেকপোস্টের পাশে একটি ছাত্রীনিবাসে থিয়েটার অ্যান্ড পারফরমেন্স স্টাডিজ বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ফারহানা রহমান লিয়োনাকে ম্যানার শেখানোর নামে মাত্রাতিরিক্ত র‌্যাগিং করা হয়। এতে মানসিক চাপে মাথা ঘুরে পড়ে যায়। পরে তাকে ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

একাধিকবার র‌্যাগিংয়ের শিকার কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী ইমরান বৃহস্পতিবার রাতে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। পরে শরীরে খিঁচুনি শুরু হলে তাকেও প্রথমে ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। সে এখন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসারত শিক্ষার্থীদের দেখতে গিয়েছিলেন ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা শেখ সুজন আলী, সহকারী প্রক্টর আল জাবির।

র‌্যাগিংয়ের শিকার শিক্ষার্থীদের চিকিৎসার সব ব্যয় বহন করছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এ ব্যাপারে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এএইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মেয়েটির বিষয়ে অবগত। এর সঙ্গে যারাই যুক্ত থাকুক, তাদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। ইতোমধ্যে চার সদস্যের একটি অ্যান্টির‍্যাগিং কমিটি গঠন করে দিয়েছি। খুব দ্রুতই জড়িতদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমাদের এই ক্যাম্পাসে র‍্যাগিংয়ের নামে কোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চলবে না।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ এই ঘটনায় জড়িতদের বিচার চায় বলে জানিয়েছে সংগঠনটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

এই ঘটনার প্রতিবাদে শিক্ষার্থী ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কমিটি রোববার সকাল ১০টায় র‍্যাগিংবিরোধী কর্মসূচি পালন করবে।

উল্লেখ্য, এ ঘটনায় যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ৪ সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে আহ্বায়ক হলেন ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা ড. শেখ সুজন আলী, সদস্য সচিব প্রক্টর ড. উজ্জ্বল কুমার প্রধান, সদস্য অগ্নিবীণা হলের প্রভোস্ট মাসুদ চৌধুরী ও দোলনচাঁপা হলের প্রভোস্ট নুসরাত শারমিন তানিয়া। দুই দিনের মধ্যে তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রদান করার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • অপরাধ এর সর্বশেষ
  • অপরাধ এর পাঠক প্রিয়