Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

এএসপি নাজমুস সাকিবের বিরুদ্ধে ভ্রুন হত্যা মামলার প্রতিবেদনে স্ত্রীর নারাজি

এএসপি নাজমুস সাকিব: ফাইল ছবি

ভ্রুন হত্যা ও দফায় দফায় গর্ভবতী স্ত্রীকে নির্যাতন করে পিঠ, হাত জালিয়ে দেয়ায় এএসপি নাজমুস শাকিবের বিরুদ্ধে করা মামলায় বাদীপক্ষের নারাজি আাবেদন দাখিল।

বৃহস্পতিবার (০৯ সেপ্টেম্বর) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল -৬ এর বিচারকের নিকট পুলিশ প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। পুলিশ প্রতিবেদনে, এএসপি নাজমুস শাকিবের বিরুদ্ধে অপরাধের সত্যতা পেয়েছে বলে উল্লেখ করে এবং ভ্রুন হত্যা, দফায় দফায় গর্ভবতী স্ত্রীকে নির্যাতন করে পিঠ, হাত জালিয়ে দেয়ায় মেডিকেল ডকুমেন্টস সংযোগ করা হয়। কিন্তু, অপরাধের ধারার স্থলে শুধুমাত্র নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন এর ১১(গ) ধারা উল্লেখ করা হয়। উক্ত রিপোর্টে সব প্রমাণাদি পাওয়া স্বত্ত্বেও শুধু ১১(গ) ধারায় চার্জশিট জমা দেয়ার বিরুদ্ধে নারাজি দাখিল করে বাদীপক্ষ। একইসঙ্গে মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব অন্য কোনো সংস্থাকে দেওয়ার আবেদন করা হয়।

আদালত আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর নারাজি শুনানীর দিন ধার্য করে।

বাদীপক্ষের আইনজীবী ইশরাত হাসান জানান, পুলিশ তার তদন্ত রিপোর্টে সব প্রমাণ করেছে কিন্তু ইচ্ছামতো ধারা বসিয়ে দিয়েছেন যা আইন বহির্ভূত।

মামলার অভিযোগে থেকে জানা গেছে, তিন বছর আগে এএসপি নাজমুস সাকিবের (বর্তমানে বরখাস্তকৃত ) সঙ্গে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের কন্যা ইসরাত রহমান তানিয়ার। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের দাবিতে শুরু হয় শারীরিক নির্যাতন। স্বামীর নির্যাতনে কয়েকবার হাসপাতালেও চিকিৎসা নিতে হয় তাকে। তারপরও নির্যাতন থামেনি। একবার জোরপূর্বক ভ্রুন হত্যার পরেও পুনরায় সন্তানসম্ভবা স্ত্রীকে অমানুষিক নির্যাতনের করেন। এরপর তাকে আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়। আর নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে ক্রসফায়ারেরও হুমকি দেওয়া হয়।

কেএফ/এফএ

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS