logo
  • ঢাকা বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

বাংলাদেশ-ভারত টেস্ট চলাকালে হতে পারে তিস্তা পানি-বণ্টন চুক্তি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:৫৩ | আপডেট : ২৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৯:২৮
তিস্তা পানি-বণ্টন চুক্তি, বাংলাদেশ ও ভারত
ভারতের গণমাধ্যম দি ইকোনোমিক টাইমস
ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ইডেন গার্ডেনসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে তিস্তা পানি-বণ্টন চুক্তির একটি নতুন অধ্যায় উন্মুক্ত হতে পারে। খবর ভারতের গণমাধ্যম দি ইকোনোমিক টাইমসের।

শেখ হাসিনা আগামী ২২ নভেম্বর পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে অনুষ্ঠেয় ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যকার টেস্ট ম্যাচটি দেখার পরিকল্পনা করছেন এবং এসময় নরেন্দ্র মোদি তার সঙ্গে যোগ দেবেন বলে জানতে পেরেছে ভারতীয় গণমাধ্যমটি।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী অক্টোবরের শুরুতে ইন্ডিয়া ইকোনোমিক সামিটে যোগদান এবং পরে নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এর মাধ্যমে আঞ্চলিক সম্পৃক্ততার একটি নতুন অধ্যায় উন্মোচিত হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ম্যাচটি চলাকালে এই দুই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যোগ দেবেন এবং এর মাধ্যমে প্রস্তাবিত তিস্তা পানি-বণ্টন চুক্তির বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অবস্থান নমনীয় হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি ভাগ করতে আপত্তি জানিয়েছেন কিন্তু নরেন্দ্র মোদি গত মাসে শেখ হাসিনাকে অদূর ভবিষ্যতে এ সংক্রান্ত একটি চুক্তির প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

এর আগে ১৯৮০ সালে পাকিস্তানি প্রধানমন্ত্রীরা এবং ভারতীয় নেতারা ক্রিকেটের মাধ্যমে আলোচনার চেষ্টা করেছিলেন। এছাড়া ২০১১ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ চলাকালেও আলোচনার চেষ্টা করেন তারা।

---------------------------------------------------------------
আরো পড়ুন: নতুন এমপিওভুক্ত হলো ২৭৩০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
---------------------------------------------------------------

বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ায় ভারতের জন্য একটি উদীয়মান কৌশলগত অংশীদারে পরিণত হয়েছে। গত ৪ অক্টোবরের উভয়পক্ষ বাংলাদেশে একটি কোস্টাল সার্ভেইল্যান্স রাডার সিস্টেম বসানো সংক্রান্ত একটি সমঝোতা স্মারক সই করেছে।

উভয় পক্ষ দুই দেশের মধ্যকার সংযোগ নেটওয়ার্ক বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এসব পদক্ষেপ নয়াদিল্লির ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলের জন্য সহায়ক হবে বলে উল্লেখ করা হয় দি ইকোনোমিক টাইমসে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত প্রতিবেদনটিতে।

কে/সি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • বাংলাদেশ এর সর্বশেষ
  • বাংলাদেশ এর পাঠক প্রিয়