logo
  • ঢাকা সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

সমন্বয়হীনতার অভাবে সফল হচ্ছে না ভেজালবিরোধী অভিযান (ভিডিও)

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১০:৪২ | আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১৩:৫৩
অস্বাস্থ্যকর ও ভেজাল খাবার বন্ধে সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করলেও সমন্বয় নেই। ‘নিরপাদ খাদ্য আইন ২০১৩’-তে কঠোর শাস্তির বিধান থাকলেও আইনটি প্রয়োগের সুযোগ কেবল ‘নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ’র। এই আইনে অন্য সংস্থাগুলোর সাজা দেয়ার সুযোগ নেই। তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, আইনটি যেন অন্যান্যরাও ব্যবহার করতে পারে, সে লক্ষ্যে কাজ চলছে।

রাজধানীসহ সারাদেশে নিয়মিত চলছে কোনো না কোনো সংস্থার ভেজালবিরোধী অভিযান। সিটি করপোরেশন, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ, ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তর, বিএসটিআইসহ বেশ কয়েকটি সংস্থা বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে।

এতো কিছুর পরও ঠেকানো যাচ্ছে না অসাধু ব্যবসায়ীদের অপতৎপরতা। আইনের ফাঁকফোকর গলে, জরিমানা গুণে দিব্বি চালিয়ে যাচ্ছেন এমন অপকর্ম।

---------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : আন্দোলন স্থগিত, এখনই ক্লাসে ফিরছেন না শিক্ষার্থীরা (ভিডিও)
---------------------------------------------------------------------

(জিএফএক্স) ‘নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩’-তে এসব অপরাধে প্রথমবার সর্বনিম্ন তিন লাখ টাকা জরিমানা বা এক বছরের কারাদণ্ড এবং সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকা জরিমানা বা পাঁচ বছর কারাদণ্ডের বিধান আছে। দ্বিতীয়বার একই অপরাধ করলে সর্বোচ্চ শাস্তি ২০ লাখ টাকা জরিমানা ও পাঁচ বছরের কারাদণ্ড। আর ভোক্তা অধিকার আইনে সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা এক বছরের কারাদণ্ড। সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা জরিমানা ও তিন বছর কারাদণ্ড। দ্বিতীয়বার একই অপরাধে সর্বোচ্চ শাস্তি দ্বিগুণ। ‘বিএসটিআই আইন-২০১৮’-তে বলা আছে, সর্বনিম্ন ২৫ হাজার ও সর্বোচ্চ এক লাখ টাকা জরিমানা।

আলাদা আলাদা আইন থাকলেও অন্যদের তা ব্যবহারের সুযোগ নেই। তাই ‘নিরাপদ খাদ্য আইন-২০১৩’ যেন সব সংস্থা ব্যবহার করতে পারে, তা নিয়ে কাজ করছে, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ।

ভেজাল ও অস্বাস্থ্যকর খাবার, সুস্বাস্থ্য ও মেধা বিকাশে বড় অন্তরায়। তাই, এসব বন্ধে কঠোর আইনের বিকল্প নেই বলে মনে করেন পুষ্টিবিদরাও। 

পি

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • বাংলাদেশ এর সর্বশেষ
  • বাংলাদেশ এর পাঠক প্রিয়