logo
  • ঢাকা শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

ইভিএম প্রক্রিয়ায় আরো বেশি জালিয়াতি করা সম্ভব: রিজভী

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ১৭ জুন ২০১৯, ১৬:৩৮ | আপডেট : ১৭ জুন ২০১৯, ১৬:৫৭
ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশ না থাকলে ইভিএম প্রক্রিয়ায় আরো বেশি জালিয়াতি করা সম্ভব। মধ্যরাতের নির্বাচনের পরেও সরকারের ভেতর থেকে শঙ্কা দূরীভূত হচ্ছে না। সুষ্ঠু ও সর্বজনমান্য নির্বাচনকে পাথরচাপা দেওয়ার পরেও তারা নিজেদেরকে নিরাপদ মনে করছে না। তাই ডিজিটাল বাংলাদেশের নামে ডিজিটাল দুর্বৃত্তপনার কোনো শেষ নেই। বললেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। 

আজ সোমবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, বিশ্বব্যাপী পরিত্যক্ত ইভিএম পদ্ধতিকে নিয়ে মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে সরকার এটি নিয়ে আবারো ব্যস্ত। তার প্রমাণ বগুড়ায় আসন্ন নির্বাচনে প্রতিটি কেন্দ্রে ইভিএম ব্যবহার করা হবে। ভোটাররা এই ইভিএম প্রক্রিয়ার জটিলতায় বেশি ভোট দিতে সক্ষম হয় না। অতীতে দেখা গেছে ইভিএম জটিলতার জন্য ভোটাররা ভোট দিতে এসে লাইনে দিনভর দাঁড়িয়ে থেকে ভোট দিতে না পেরে ফিরে গেছে। যেহেতু বগুড়াতে ধানের শীষের ভোট বেশি সেহেতু প্রতিটি কেন্দ্রেই পরিকল্পিতভাবে ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকারের আজ্ঞাবাহী নির্বাচন কমিশন।

তিনি বলেন, ইভিএম-এর কোনো পেপার ট্রেইল না থাকায় ভোট দেওয়া বা না দেওয়ার কোনো প্রমাণ থাকে না। ভারতের অনেক জায়গায় ইভিএম-এ ভোটগ্রহণ হলেও সেখানে সকল বিরোধী দল এটির তীব্র প্রতিবাদ করেছে, হাইকোর্টে মামলাও আছে। যদিও সেদেশের ইভিএম-এ পেপার ট্রেইল ছিল। বাংলাদেশে ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহারের মূল উদ্দেশ্য হলো-এই ইভিএম মেশিন দ্বারা ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে দূরবর্তী স্থানে থেকেও ভোট ডাকাতি করা সম্ভব।

তিনি বলেন, ইভিএম নিয়ে সরকারের আগ্রহের আরেকটি মূল কারণ হচ্ছে এই মেশিন ক্রয়ে ব্যাপক দুর্নীতির সুযোগ দিয়ে কিছু ব্যক্তিকে লাভবান করা। একটি ইভিএম মেশিনের দাম ৪০ হাজার টাকার মতো পড়ে, অথচ নির্বাচন কমিশন সেই মেশিন কিনছে ২ লক্ষ টাকায়। অর্থাৎ কৌশলে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ঘুষ দিয়ে মিডনাইট নির্বাচনকে সফল করা।

এসজে/ এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়