রাজধানীতে পরিবহন সংকট, ভোগান্তি

প্রকাশ | ২১ জুলাই ২০১৮, ১৭:২৭ | আপডেট: ২১ জুলাই ২০১৮, ১৭:৩৭

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
ছবি-সংগৃহীত

একদিকে শেখ হাসিনার গণসংবর্ধনার উদ্দেশ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানমুখী জনতার ভিড় আর অন্যদিকে অফিস ও নিত্যদিনের অন্যান্য প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হওয়া সাধারণ মানুষ গণপরিবহন না পেয়ে পড়েছে ভোগান্তিতে। 

বিভিন্ন মোড়ে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়েও যাতায়াতের গাড়ি পাচ্ছেন না অনেকেই। ফার্মগেট, রামপুরা, মালিবাগ, মিরপুরের বিভিন্ন সড়কে তেমন একটা গণপরিবহনের দেখা মিলছে না।

শনিবার সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোতে সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় অফিসগামী লোকের সংখ্যা কিছুটা কম হলেও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল এবং বিভিন্ন হোটেলের কর্মরত লোকদের নানা অসুবিধায় পড়ে। 

ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সূত্রে জানা যায়, আজ বেশিরভাগ গাড়ি সমাবেশের জন্য বরাদ্দ নিয়ে গেছে। রাজনৈতিক কর্মীরা বাসে উঠে ভাড়া দিতে চায় না। হেলপারের সঙ্গে সমস্যা করে। নানা সমস্যার কারণেই আজ রাস্তায় বাস কম। 

বিকল্প সিটি সুপার বাসের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহাবুবুর রহমান আরটিভি অনলাইনকে বলেন, রাস্তায় জ্যাম। বিভিন্ন রাস্তা বন্ধ। এইজন্য বাসের ড্রাইভাররা রাস্তায় বাস চালাচ্ছে না। তবে আমি নির্দেশ দিয়েছি বিকেল পাঁচটার পর থেকে সব বাস ডিপো থেকে ছেড়ে দেয়ার জন্য। রাজনৈতিক যেকোনো সভা মিটিং মিছিল হলে আমাদের ব্যবসার একটু সমস্যা হয়।

আপন নামে এক ব্যক্তি বলেন, একেবারে নিরুপায় হয়ে কারওয়ান বাজার থেকে বিজয় নগর পায়ে হেটে আসলাম এক ঘণ্টা বিশ মিনিটে। কোন প্রকার যানবাহন না পেয়ে এইভাবে যাত্রা করতে হয়েছে। 

এদিকে আজ বাস থেকে যাত্রী বের করে দেয়ার অভিযোগ করেছে অনেকে। জিসান কানিজ নামে এক যাত্রী অভিযোগ করেন, প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনার কর্মসূচী বুঝলাম, কিন্তু ভরা বাস থামায়ে যাত্রী বের করে দিয়াটা কতটুকু যুক্তিসংগত বুঝলাম না। রাজধানীর মিরপুর থেকে শাহবাগ যাওয়ার সময় পথে রাস্তার মাঝখানে যাত্রী নামিয়ে দিয়ে বাস অন্যপথে নিয়ে যায়।

এদিকে গণসংবর্ধনায় আসা ট্রাক ও বড় যানবাহনগুলোকে নির্দিষ্ট পথে ব্যবহার করতে হবে বলে ডিএমপির পক্ষে থেকে জানানো হয়। মিরপুর বা সাভারের যানবাহনগুলোকে টেকনিক্যাল দিয়ে রাসেল স্কয়ার হয়ে নিউমার্কেট দিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পাশে যেতে দেয়া হচ্ছে। 

আরসি/এসএস