DMCA.com Protection Status
  • ঢাকা শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬

যা আছে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে ১৯৯২ সালের মিয়ানমার নীতিতে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন
|  ০৪ অক্টোবর ২০১৭, ০৯:৩৬
১৯৯২ সালের ২৮ এপ্রিল। বাংলাদেশ-মিয়ানমার যৌথ ঘোষণা স্বাক্ষরিত হয় এদিনে। যৌথ ঘোষণাটিতে বাংলাদেশের পক্ষে স্বাক্ষর করেন ওই সময়কার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএসএম মোস্তাফিজুর রহমান এবং মিয়ানমারের পক্ষে স্বাক্ষর করেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইউ ওহন গিয়াউ।

যৌথ ঘোষণা অনুসারে মিয়ানমারের ১৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ওই বছরের ২৩ থেকে ২৮ এপ্রিল বাংলাদেশ সফর করে। মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটিতে ছিলেন দেশটির তথ্যমন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মিয়ো থান্থ। যৌথ ঘোষণার তৃতীয় দফায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী দেশটিতে অবস্থানরত মিয়ানমারের শরণার্থী রোহিঙ্গাদের পরিস্থিতি সংক্ষেপে তুলে ধরেন এবং নিম্নলিখিত চারটি বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন:

* মিয়ানমার থেকে মানুষের বাংলাদেশে পালিয়ে আসা অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে।

* শরণার্থীদের প্রত্যাবাসন তাদের মূল আবাসস্থলে সম্মানজনক, নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ হতে হবে।

* আস্থা অর্জনের পদক্ষেপ হিসেবে সীমান্ত থেকে সেনা প্রত্যাহার/কমিয়ে আনা।

* ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না হয় সেজন্য দীর্ঘমেয়াদি সমাধান গ্রহণ।

ওই যৌথ ঘোষণার ষষ্ঠ দফায় রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে উভয় দেশের ঐকমত্যের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া মিয়ানমারের শরণার্থীদের স্বেচ্ছায় প্রত্যাবাসন, প্রত্যাবাসনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয় এবং স্থায়ী ও দীর্ঘমেয়াদি ভিত্তিতে সমস্যাটি সমাধানে দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী একটি ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

উল্লেখিত পরিস্থিতিতে উভয় পক্ষ মতবিনিময় শেষে নিম্নলিখিত বিষয়ে একমত হয়:

* উভয় পক্ষ বন্ধুত্বপূর্ণ ও শান্তিপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় সমঝোতার ভিত্তিতে শরণার্থী সমস্যার সমাধান এবং সীমান্তে আস্থা, সৌহার্দ্য ও শান্তি বজায় রাখার বিষয়ে নিজেদের অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করেছে।

* উভয় পক্ষ শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের পাঁচটি নীতি পূর্ণাঙ্গরূপে অনুসরণে সম্মত হয়েছে।

* মিয়ানমার সরকার দেশটির বাসিন্দাদের বাংলাদেশে প্রবেশ ঠেকাতে সব ধরনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। যারা মিয়ানমার ছেড়ে বাংলাদেশে এসেছে তাদের স্বেচ্ছায় ও নিরাপদে তাদের বাড়িতে ফিরিয়ে নিতে উৎসাহ দেবে।

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে মানদণ্ডের বিষয়টি ৬ষ্ঠ দফার চতুর্থ ধারায় উল্লেখ করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, মিয়ানমার সরকার সহযোগিতার মনোভাব নিয়ে যাচাই প্রক্রিয়া শেষে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ব্যক্তিদের ফিরিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে। এক্ষেত্রে মিয়ানমারের যেসব বাসিন্দা শরণার্থী কার্ড দ্বারা বাংলাদেশে নিবন্ধিত এবং যারা মিয়ানমারের বাসিন্দা হিসেবে প্রমাণ দিতে পারবে তাদেরকেই ফিরিয়ে নেয়া হবে। শরণার্থীদের যাচাইয়ের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকারের দেয়া তালিকা অনুযায়ী যাদের মিয়ানমারের নাগরিকত্ব কার্ড, এই বিষয়ে মিয়ানমারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দেয়া নথি রয়েছে এবং যারা মিয়ানমারের বাসিন্দা হিসেবে ঠিকানা বা অন্যান্য সংশ্লিষ্ট সুনির্দিষ্ট তথ্য দিতে পারবে তাদের ফিরিয়ে নেয়া হবে। মিয়ানমারের বাসিন্দা হিসেবে যারা নিজেদের প্রমাণ করতে পারবে তাদের প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে কোনো নির্দিষ্ট সংখ্যা থাকবে না। তারা (মিয়ানমার) আরো নিশ্চয়তা দেয় যে, বাংলাদেশ সরকারের দেয়া তালিকার সঙ্গে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের যাচাই করা ব্যক্তিদের তালিকা প্রায় একই।

এই ষষ্ঠ দফার ৬ষ্ঠ ধারায় বলা হয়েছে, উভয়পক্ষ এই প্রত্যাবাসন নিরাপদ ও স্বেচ্ছামূলক হবে বলে একমত হয়। মিয়ানমারে ফিরে যাওয়া ব্যক্তিদের নিজেদের বাড়িতে ও মূল জমিতে পুনর্বাসন করা হবে এবং তাদের মিয়ানমার সমাজের সদস্য হিসেবে জীবিকা নির্বাহের সুযোগ দেয়া হবে। বাংলাদেশ সরকার নিরাপদ ও স্বেচ্ছামূলক প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর এর প্রতিনিধিকে সহযোগিতা করবে বলে সম্মত হয়। মিয়ানমার সরকার আরো সম্মত হয় যে, ইউএনএইচসিআর-র সহযোগিতা উপযুক্ত সময়ে চাওয়া হবে।

সপ্তম ধারায় উল্লেখ করা হয়েছে, মিয়ানমারের বাসিন্দাদের স্বেচ্ছায় ও নিরাপদ ফেরত নেয়ার প্রক্রিয়ায় আন্তর্জাতিক উদ্বেগ কমানোর লক্ষ্যে প্রত্যাবাসনের প্রক্রিয়ার বিভিন্ন স্তরে ইউএনএইচসিআর-এর ভূমিকার স্বীকৃতি দেয় উভয় পক্ষ। মিয়ানমার পক্ষ আরো নিশ্চয়তা দেয় যে, মিয়ানমারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পরামর্শক্রমে এই লক্ষ্যে কাজ শুরু করবে।

অষ্টম ধারায় বলা হয়েছে, উভয় সরকার ভবিষ্যতে এ ধরনের সমস্যা যাতে সৃষ্টি না হয় সেজন্য ব্যাপক ও স্থায়ী সমাধানে একমত হয়।

চলতি বছরের ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইনে সামরিক অভিযান জোরদার হওয়ার পর পাঁচ লাখের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এর আগে থেকেই বাংলাদেশে প্রায় চার লাখ রোহিঙ্গা বাস করছিল। সবমিলিয়ে বাংলাদেশে প্রায় ৯ লাখ রোহিঙ্গা বাস করছে।

এপি/ এসএস

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়