Mir cement
logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮

আরটিভি নিউজ

  ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:২৬
আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:১৬

‘পণ্য দেন না হয় টাকা দেন’ (ভিডিও)

‘পণ্য দেন না হয় টাকা দেন’

ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির চমকপ্রদ বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে লাখ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন গ্রাহকরা।কথা ছিলো টাকা পরিশোধ করার পর ১৫ থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে পণ্য বুঝিয়ে দেয়া হবে। কিন্তু কয়েকমাস সময় পেরিয়ে গেলেও পণ্য বুঝে পাননি ইভ্যালিতে বিনিয়োগকারী লাখ লাখ গ্রাহক।

এরই প্রেক্ষিতে গতকাল বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) মধ্যরাতে মো. আরিফ বাকের নামে একজন গ্রাহক ইভ্যালির সিইও মোহাম্মদ রাসেল ও তার স্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান শামীমা নাসরিনের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় প্রতারণা মামলা দায়ের করেন। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজধানীর মোহাম্মদপুর স্যার সৈয়দ রোডের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এ সময় টাকা ফেরত পাওয়ার দাবিতে তাদের মোহাম্মদপুরের বাসার সামনে বিক্ষোভ করেন শত শত গ্রাহক। গ্রাহকদের অনেকে বলছেন, ইভ্যালির মালিক দীর্ঘদিন ধরে আমাদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছে।

আরটিভি নিউজকে একজন গ্রাহক জানান, তিনি ও তার কয়েকজন বন্ধু মিলে গেলো মার্চ মাসে ১৮ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেন ইভ্যালিতে। কথা ছিলো ১৫ থেকে ৪৫ দিনের মধ্যে পণ্য বুঝিয়ে দেয়া হবে। নির্দিষ্ট সময়ের পর পণ্য পেতে প্রতিষ্ঠানটির কাষ্টমার কেয়ারে বার বার ফোন করা হলে তারা মিথ্যে আশ্বাস দিতে থাকেন। কিন্তু দীর্ঘ ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও পণ্য হাতে না পেয়ে অনেকটা অনিশ্চয়তায় পরেছেন তিনি ও তার বন্ধুরা।

গ্রাহকদের অনেকেই জানান আমরা এখন টাকাও পাচ্ছিনা পণ্যও পাচ্ছিনা।তারা বলেন, হয় পণ্য দেন না হয় টাকা দেন।

কয়েকজন গ্রাহক অভিযোগ করে বলেন, এখন মামলা দিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলার ফাক-ফোকর দিয়ে তারা পার পেয়ে যাবে কিন্তু আমাদের টাকার কি হবে? গ্রেপ্তারের পর যদি আমাদের টাকা ফেরত দেয়া হয় তাহলে ভাল, তা না হলে আমরা পথে বসে যাব।

গ্রাহকরা বলেন, ইভ্যালির মালিক গ্রাহকদের পাওনা টাকা ফেরত দিতে আগামী ছয় মাস সময় চেয়েছিল। কিন্তু সেই সময় দেয়া হয়নি। আমরা লোন করে লাখ লাখ টাকা ইভ্যালিতে বিনিয়োগ করেছি।এখন আমাদের টাকার কি হবে?

উল্লেখ্য, প্রতারণার মামলায় ইভ্যালির সিইও মোহাম্মদ রাসেলকে এক নম্বর আসামি ও চেয়ারম্যান শামীমাকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে। এই মামলায় ইভ্যালির আরও বেশকজন কর্মকর্তাকে ‘অজ্ঞাতনামা’ দেখিয়ে আসামি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে তাদের গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয়। জিজ্ঞাসাবাদের পর তাদের গুলশান থানায় হস্তান্তর করার কথা রয়েছে।

এমএন

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS