Mir cement
logo
  • ঢাকা সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯

ভারতে বাংলাদেশি তরুণীকে ভ'য়ঙ্কর যৌ'ন নি'র্যাতনে গ্রে'প্তার ৫

নির্যাতনের ভিডিও চিত্র থেকে নেয়া স্ক্রীনশর্ট

ভারতের কেরালায় বাংলাদেশি তরুণীকে ভয়ঙ্কর যৌন নির্যাতন ও ভিডিও ধারণ করে তা ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার ঘটনায় ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে বেঙ্গালুরু পুলিশ।

তাদের মধ্যে রাজধানী ঢাকার হাতিরঝিলের বাসিন্দা রিফাদুল ইসলাম হৃদয় রয়েছেন, যিনি এলাকায় ‘টিকটক হৃদয় বাবু’ নামে পরিচিত। গ্রেপ্তার অপর ৪ জনের মধ্যে ৩ জন হলেন মোহাম্মদ বাবা শেখ, সাগর ও অখিল। গ্রেপ্তার নারীর পরিচয় এখনো প্রকাশ করা হয়নি।

ডিএমপির তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মো. শহিদুল্লাহ বৃহস্পতিবার (২৭ মে) গভীর রাতে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ওই ঘটনায় রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় তরুণীর বাবার করা মামলায় বাংলাদেশি আসামিদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনা হবে।

ভিডিও দেখে নিজের মেয়েকে শনাক্তের পর বৃহস্পতিবার রাতে হাতিরঝিল থানায় মামলাটি করেন তিনি।

এ বিষয়ে বেঙ্গালুরু সিটি পুলিশের এক প্রেস নোটে জানানো হয়, ভিডিও ক্লিপ দেখে ঘটনায় জড়িত এক নারীসহ ৫ জনকে দ্রুত শনাক্ত করে আটক করা হয়। এরপর ভিডিও ক্লিপ এবং আটকদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের তথ্যের ভিত্তিতে রামমূর্তি নগর থানায় তাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ, নিপীড়ন ও এ সংশ্লিষ্ট আইনের অন্যান্য ধারায় মামলা করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে, তারা সবাই বাংলাদেশি।

এ বিষয়ে দ্য হিন্দুর এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, চক্রটি ওই তরুণীকে নির্যাতনের সময় ভিডিও ধারণ এবং ক্লিপ আসাম ও পশ্চিমবঙ্গের বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করে। ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পরপরই নর্থ ইস্ট পুলিশ ও বাংলাদেশ পুলিশ তদন্ত শুরু করে।

অভিযুক্তদের তথ্য পেতে আসাম পুলিশ তাদের ছবিও আপ করে টুইটারে। এরই এক পর্যায়ে বেঙ্গালুরুর একটি সেল ফোন থেকে ভিডিওটি ছড়ানোর বিষয় নিশ্চিত হওয়া যায়। এরপর বেঙ্গালুরু সিটি পুলিশকে সতর্ক করা হয় এবং একটি বিশেষ দল কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তাদের শনাক্ত করে। তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয় একটি ভাড়া বাসা থেকে।

ডিসি মো. শহিদুল্লাহ এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, কয়েক দিন ধরে ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে এক তরুণীকে বিবস্ত্র করে শারীরিক ও যৌন নিপীড়ন করতে দেখা যায় তিন-চার যুবক ও এক মেয়েকে।

ভারতের কেরালায় হওয়া ওই ঘটনায় ভিকটিম ও নিপীড়কদের একজন বাংলাদেশি নাগরিক। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নিপীড়ক যুবক রাজধানীর হাতিরঝিলের মগবাজার এলাকার রিফাদুল ইসলাম হৃদয়। তিনি স্থানীয়ভাবে ‘টিকটক হৃদয় বাবু’ নামে পরিচিত।

এ ঘটনায় করা মামলার এজাহারে মেয়েটির বাবা জানান, তিনি মগবাজার এলাকার ফুটপাতে জুসের ব্যবসা করেন। তার মেয়ের ৬-৭ বছর আগে বিয়ে হয়। স্বামী তিন বছর ধরে কুয়েতে থাকেন। স্বামী বিদেশ যাওয়ার পর থেকে তার মেয়ে তার ও শ্বশুরবাড়ি দুই জায়গায়ই থাকতো।

তিনি আরও জানান, তার মেয়ে ১৫ মাস আগে দুবাই যাওয়ার কথা বললে তিনি নিষেধ করেন। পরে এক বছর ধরে তিনি তার কোনো খোঁজ পাননি। এরপর তিনি জানতে পারেন, মগবাজারের রিফাদুল ইসলাম ওরফে টিকটক হৃদয় তাকে ফুঁসলিয়ে বিক্রির উদ্দেশ্যে পাচার করেছে।

কিছুদিন আগে জানতে পারেন, তার মেয়ে হৃদয়ের সঙ্গে ভারতে আছে। সম্প্রতি ভিডিওটি দেখে তিনি তার মেয়েকে চিনতে পারেন।

হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রশীদ জানান, তরুণীর বাবা থানায় মামলা করেছেন। এখন তারা তদন্ত শুরু করবেন এবং ভুক্তভোগীকে দেশে ফিরিয়ে এনে চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন। আসামিদের ভারতের পুলিশের মাধ্যমে দেশে ফিরিয়ে এনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কেএফ/এম

মন্তব্য করুন

RTV Drama
RTVPLUS