Mir cement
logo
  • ঢাকা রোববার, ০৯ মে ২০২১, ২৬ বৈশাখ ১৪২৮

আরটিভি নিউজ

  ০৪ মে ২০২১, ২৩:৫২
আপডেট : ০৫ মে ২০২১, ০০:৪৪

আরটিভি নির্ভীক সম্মাননা ২০২১ পেলেন ৬ অগ্নিসেনা

আরটিভি ‘আর আর কাবেল নির্ভীক সম্মাননা পেলেন ৬ অগ্নিসেনা
আরটিভি ‘আর আর কাবেল নির্ভীক সম্মাননা পেলেন ৬ অগ্নিসেনা

‘অগ্নি নির্বাপণ অপেক্ষা অগ্নি প্রতিরোধ উত্তম’ এই স্লোগানে সারাবিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশেও মঙ্গলবার (৪ মে) পালিত হলো আন্তর্জাতিক ফায়ার ফাইটার্স ডে। আর এই দিবসটি পালন উপলক্ষে দেশের ফায়ার সার্ভিসের ৬ জন নির্ভীক অগ্নিসেনাকে দেয়া হলো ‘নির্ভীক সম্মাননা পদক-২০২১’।

বেসরকারি টেলিভিশন আরটিভি’র উদ্যোগে আরআর কাবেল এর সহযোগিতায় দেশের এই ৬ জন অগ্নিসেনাকে দেওয়া হয় নির্ভীক সম্মাননা।

সম্মাননা পাওয়া অগ্নিসেনারা হলেন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ আবদুল্লাহ, স্টেশন অফিসার শামছুল আলম, ফায়ার ফাইটার মো. মোশারফ হোসেন, লিডার নুরুল হক, ডুবুরি রাজীব হাসান ও ড্রাইভার মো. দুলাল মিয়া।

মঙ্গলবার (৪ মে) রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বেঙ্গল মাল্টিমিডিয়া স্টুডিওতে অনুষ্ঠিত এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। যে অনুষ্ঠানটি রাত ৮টায় আরটিভিতে প্রচারিতও হয়।

এ অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে সম্মাননা পদক তুলে দেন- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন, মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাইল করিম, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেনেন্সর মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন, আর আর ইম্পিরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেডের পরিচালক আহমেদ আশফাকুর রহমান, এনআরবিসি ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান এস. এম. পারভেজ তমাল, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মঞ্চসারথী আতাউর রহমান এবং আরটিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হুমায়ুন কবির বাবলু ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক রহমান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, আরটিভি সবসময়ই প্রথম সারির গণমাধ্যম হিসেবে দেশ ও সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা পালন করে আসছে। আজ অগ্নিসেনাদের সম্মাননা জানানোর উদ্যোগটি তাদের আরও উৎসাহিত করবে। আমি আরটিভি এবং সম্মাননাপ্রাপ্ত সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও ধন্যবাদ জানাই।

মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, আরটিভি শুধুমাত্র একটি বিনোদন টিভি চ্যানেল নয়। তারা সবসময়ই সমাজের বিভিন্ন স্তরের হিরোদেরকে তুলে এনে সম্মাননা জানিয়ে থাকে। গণমাধ্যম হিসেবে আরটিভি যা করছে তা সবারই দায়িত্ব। আমি চাই আরটিভি তাদের এ ধারাকে অব্যাহত রাখুক।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, মানুষ যখন বিপদে পড়ে ফায়ার সার্ভিসের সহযোগিতা চায়। আগুন, পানি, যেকোনো দুর্ঘটনায় অগ্নিসেনারা মানুষের পাশে দাঁড়ায় নিজের জীবনকে বাজি রেখে। আরটিভিকে আমি ধন্যবাদ জানাতে চাই, তারা আমাদের অকুতোভয় কর্মীদের সম্মাননা জানাচ্ছে সেজন্য। এ সম্মাননা সবার মাঝে কর্মস্পৃহা তৈরি করবে এবং মনোবল আরও বাড়িয়ে দেবে।

অনুষ্ঠানে আরটিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হুমায়ুন কবির বাবলু ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আশিক রহমান বলেন- অগ্নিসেনারা নিজেদের জীবন বাজি রেখে মানুষের জীবন বাঁচায়। তাদের সেই বীরত্বকে তুলে ধরার জন্য আমরা এ আয়োজনটি করছি। তারা যে কাজটি অত্যন্ত সাহসের সাথে করে থাকে তা জাতীর কাছে তুলে ধরাটা গণমাধ্যম হিসেবে আমাদের দায়িত্ব। আরটিভি নির্ভীক সম্মাননা ২০২১ জানিয়ে তাদেরকে উৎসাহিত করছে। এতে করে তারা সামনের দিনগুলোতে আরো উদ্যোগী হবে।

আর আর ইম্পিরিয়াল ইলেকট্রিক্যালস লিমিটেডের পরিচালক আহমেদ আশফাকুর রহমান বলেন- অগ্নিসেনারাই আমাদের আসল হিরো কারণ তারা অন্যের জীবন বাঁচায় নিজের জীবন বাজি রেখে। আরটিভি এবং আরআর কাবেল তাদের মধ্য থেকে ৬ জনকে নির্ভীক সম্মাননা ২০২১ জানিয়ে নিজেদেরকে ধন্য মনে করছে।

অনুষ্ঠানের সব শেষে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এর শুরুতেই পরিবেশিত হয় থিমসংগ ‘সেভ দ্য আর্থ’। পরে, কবিরুল ইসলাম রতনের কোরিওগ্রাফিতে নৃত্য পরিবেশন করেন তারিন জাহান ও নৃত্যালোক। এছাড়াও অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশন করেন মীম, সিনথিয়া, শাওন, আহসান, রুহানি সালসাবিল, সামিয়া অথৈ, রাসেল, তুষার ও নৃত্যভূমির সদস্যবৃন্দ। আবৃত্তি ও দলীয় সংগীত পরিবেশন করেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের সদস্যবৃন্দ।

শিবলী জিয়ার প্রযোজনায় নীল হুরেরজাহান উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানটির টাইটেল স্পন্সর ছিল আরআর কাবেল।

এদিকে জানা গেছে, বিশ্ব ফায়ার ফাইটার্স ডে উপলক্ষে মঙ্গলবার (৪ মে) সকালে ফায়ার সার্ভিস সদর দফতর থেকে একটি র‌্যালি বের হয়ে মিরপুর-১০ নম্বরে গিয়ে শেষ হয়। লাল ও সবুজ ব্যাজ পরে এ র‌্যালিতে অংশ নেন অগ্নিনির্বাপণ কর্মীরা।

ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক (প্রশিক্ষণ, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) লে. কর্নেল মোহম্মদ মোশারফ হুসেন জানান, বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একজন ফায়ার কর্মীকে অনেক সময় টানা ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা আগুন নেভাতে কাজ করতে হয়। অনেকে হতাহত হন। দেশের জন্য তাদের এই আত্মত্যাগকে উৎসাহিত করতে দিবসটি তাৎপর্যপূর্ণ।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৮ সালের ২ ডিসেম্বর অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়ায় আগুন নেভাতে গিয়ে পাঁচজন কর্মী মারা যান। তাদের স্মরণে ২০০২ সালের ৪ মে থেকে ফায়ার ফাইটার্স ডে পালিত হয়ে আসছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়।

RTV Drama
RTVPLUS