Mir cement
logo
  • ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৬ মে ২০২১, ২৩ বৈশাখ ১৪২৮

বসুন্ধরার এমডির আগাম জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন (ভিডিও)

সায়েম সোবহান আনভীর

গুলশানে কলেজছাত্রী মোসারাত জাহান মুনিয়া আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলায় আগাম জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেছেন মামলার আসামি বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়, দোষী প্রমাণ হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন... চার্টার্ড ফ্লাইটে দেশ ছেড়েছেন বসুন্ধরার এমডির পরিবার

সোমবার (২৬ এপ্রিল) রাতে গুলশানের ১২০ নম্বর রাস্তার ১৯ নম্বর বাড়ির ফ্ল্যাট থেকে কলেজছাত্রী মোসারাত জাহান মুনিয়ার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় মুনিয়ার বোনের দায়ের করা মামলার অভিযোগে বলা হয়, বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের সঙ্গে মুনিয়ার দুই বছরের বেশি সময় ধরে সম্পর্ক চলছিল। ২০১৯ সালে স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে তারা বনানীর একটি ফ্ল্যাটে ভাড়া থাকতো।

আরও পড়ুন...ভিক্ষুক ভেবে টাকা দেয়ার পর প্যান্টের চেইন খুললো যুবক

মোসারাত জাহান মুনিয়ার বড় বোন ইসরাত জাহান বলছেন, ফুসলিয়ে নেয়া হয়েছে মুনিয়াকে। সে (সোবহান আনভীর) তাকে (মুনিয়া) বিয়ে করবে বলে প্রলোভন দেখিয়েছিল।

মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের পর থেকেই হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা নিয়ে নানা মহলে প্রশ্ন উঠে। এরই মধ্যে সুরতহাল ও ময়না তদন্তকারী চিকিৎসকের প্রাথমিক রিপোর্ট হাতে পেয়েছে তদন্তকারী দল। যাতে মুনিয়া আত্মহত্যা করেছে বলে জানালেন গুলশানের উপ-পুলিশ কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।

তিনি বলেন, সুরতহালের সময় শরীরে অন্য কোনো জখমের চিহ্ন বা কোনো আঘাত শনাক্ত হয়নি।

মামলার বাদী জানান, তার বোনকে বিয়ে করে বিদেশে স্থায়ী হবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সায়েম সোবহান আনভীর। তবে আনভীরের বাবা-মা তাকে মেরে ফেলতে পারে এমন আশঙ্কার কথাও জানিয়েছিল বলে জানান তিনি। এসব ঘটনার তদন্ত চলছে বলে জানায় পুলিশ।

গুলশানের উপ-পুলিশ কমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ইতোমধ্যে আমরা তার ৬টি ডায়েরি পেয়েছি। ডায়েরিগুলো বিশ্লেষণ করে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছি আমরা। তার মধ্যে যে এক ধরনের বড় হতাশা ছিল সেগুলো ডায়েরি থেকে উঠে এসেছে।

তিনি আরও বলেন, ঘটনার দিন বা ঘটনার আগের দিন আমরা অভিযুক্তের ওই এলাকায় কোনো চলাফেরা বা ফুটেজ পাইনি। তবে এর আগে আমরা পেয়েছি। আদালতের অনুমতি সাপেক্ষে সেগুলো আমরা এ মামলায় গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষ্য হিসেবে বিবেচনায় নেব।

এদিক মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের পর থেকে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীর রয়েছেন ধরা ছোঁয়ার বাইরে। যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানালেন জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেলে ছাড় নয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আইন, আইন অনুযায়ী চলবে। যেই অপরাধী হোক তাকে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে। এটা তদন্তাধীন রয়েছে।

মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানায় তার পরিবার। এদিকে আগাম জামিন চেয়ে বুধবার হাইকোর্টে আবেদন করেছেন মামলার অভিযুক্ত আসামি সায়েম সোবহান আনভীর।

এসআর/এম

RTV Drama
RTVPLUS