logo
  • ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

চটপটি ব্যবসা ছেড়ে ইয়াবা কারবারি, জুতায় মিললো ১২৫০ পিস ইয়াবা

সাড়ে ১২শ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট নিয়ে গ্রেপ্তারকৃত আল আমিন
আল আমিন, শুরুর দিকে করতেন চটপটির ব্যবসা। ভালোই চলছিল তার ব্যবসা। কিন্তু হঠাৎ অল্প মুনাফায় অধিক লাভের আকাঙ্খা তাকে পেয়ে বসে। বড়লোক হতে হবে, অবৈধ মাদকদ্রব্য বিক্রি করে প্রচুর টাকা রোজগার করতে হবে, বাড়ি, গাড়ি করতে হবে। এমন স্বপ্নে বিভোর এক যুবককে গতকাল রোববার রাতে গ্রেপ্তার করে পল্লবী থানা পুলিশ।

পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, আল আমিনের অনেক বুদ্ধি। সে নতুন স্যান্ডেলের ভিতরে সুকৌশলে ১২৫০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ঢুকিয়ে জুতার ব্যাগে ভরে। মনে মনে অনেক স্বপ্ন তার, অনেক সাধ, এই চালানটা ঠিকমতো টার্গেটের কাছে পৌঁছাতে পারলেই হয়!

আল আমিন গতরাতে পল্লবী থানাধীন অরিজিনাল ১০ নম্বর এলাকা দিয়ে তার স্বপ্নের সিঁড়ি বেয়ে বেয়ে ভদ্রবেশে এগিয়ে চলেছে। কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে আর সামান্য কিছুক্ষণ বাকি। আল আমিন মাদক চোরাচালান সফলে দৃঢ় প্রত্যয়ী! চোখে সাফল্যের হাতছানি! খুব শীঘ্রই রঙিন স্বপ্নের বাস্তবায়ন। কিন্তু বিধিবাম!

পল্লবী থানার এসআই মো. রহিম গোপন তথ্যের ভিত্তিতে হঠাৎ আল আমিনের স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার করে দিলো। আচরণে সন্দেহের ভিত্তিতে জুতাসহ তাকে হাতেনাতে ধরে ফেললো পুলিশ। শুরু হলো আল আমিনের চোটপাট। আল আমিনের ডায়ালগ "স্যান্ডেল নিয়েও কি হাঁটতে পারবো না?" কারণ তখনও জানা যায়নি স্যান্ডেললের ভেতরে কী আছে। 

স্যান্ডেল জোড়া দেখতে চাইলে আল আমিন মোড়ামুড়ি শুরু করলো। আল আমিনের প্রশ্ন "স্যান্ডেল দেখার কী আছে"? নাছোড়বান্দা এসআই রহিম। স্যান্ডেলের বকলেছ খুলতেই বেরিয়ে আসলো ১২৫০ পিছ ইয়াবা ট্যাবলেট। স্বপ্ন ভঙ্গ হওয়া আল আমিনকে ইয়বাসহ ধরার ঘটনা সাময়িকভাবে এখানেই সমাপ্ত হয়েছে। তাকে আদালতে তোলা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ

হাজী সেলিমের ছেলে এরফান গ্রেপ্তার

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে নির্যাতনের বর্ণনা দিলো শিশুরা

আজ সোমবার (২৬ অক্টোবর) বিকেল সাড়ে ৩ টায় এসব তথ্য নিশ্চিত করে পল্লবী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী ওয়াজেদ আরটিভি নিউজকে জানান, গ্রেপ্তারকৃত আল আমিনকে কিছুক্ষণ আগেই আদালতে পাঠানো হয়েছে। তাকে অধিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে।

কেএফ/এম 

RTVPLUS