যে কারণে ৩২ যাত্রী রেখে উড়াল দিলো সৌদি এয়ারলাইন্স

প্রকাশ | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:০১ | আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ২২:৩৮

আরটিভি নিউজ
সৌদি এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ

করোনার কারণে দেশে আটকে কর্মহীন ছিলেন তারা। করছিলেন মানবেতর জীবন যাপন। সৌদি আরবে কাজ করে দেশে রেমিটেন্স পাঠানোয় রয়েছে তাদের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা। এমন হতভাগ্যরা দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর কাঙ্খিত উড়োজাহাজের টিকেট হাতে পেয়েছিলেন। অথচ উদাসীনতাই যেনো কাল হলো তাদের। বেসরকারি হসপাতাল থেকে করোনা টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট জমা দেওয়ায় তাদের ৩২ জনকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রেখেই আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় উড়াল দেয় সৌদি এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ।

এমনই একজন হতভাগ্য শাহজাহান। সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ থেকে করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তার করোনা পরীক্ষার সনদ আমলে নেয়নি সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্স।

কেরাণীগঞ্জের আরেক ভুক্তভোগী নূর ইসলামের ভাই বলেন, আমার ভাইকে ধানমন্ডি ইবনে সিনা হাসপাতাল থেকে করোনা পরীক্ষা করে সনদ নিয়ে বিমানবন্দরে আসছি। এখন যেতে পারছি না।

কেবল তারা দুজন নয়, এরকম আরও ৩২ প্রবাসীর সনদকে গ্রহণযোগ্য মনে করেনি এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ। বেসরকারি হাসপাতালে পরীক্ষা করে করোনার সনদ নিয়ে আসায় তাদের রেখেই এসভি ৩৮০৭ ফ্লাইটটি শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে যায়।

বিমানবন্দর সূত্র জানিয়েছে, সরকার নির্ধারিত পিসিআর ল্যাব থেকে কোভিড-১৯ পরীক্ষা না করে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে পরীক্ষা করে সনদ নিয়ে আসেন ওই ৩২ যাত্রী। ফলে তাদের বোর্ডিং কার্ড দেয়নি সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্স। পরে তাদের রেখেই ফ্লাইটটি বিমানবন্দর ছেড়ে যায়।

সরকার পূর্বেই ঘোষণা দিয়েছে, বিদেশগামীদের ১৪টি সরকারি মেডিকেল কলেজ ও প্রতিষ্ঠান থেকে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করাতে হবে। সেই অনুযায়ী পরীক্ষা করে বিদেশ যাচ্ছেন বাংলাদেশিরা। এছাড়াও সৌদি আরবগামী যাত্রীর জন্য সরকার মহাখালীতে ডিএনসিসি করোনা স্যাম্পল কালেকশন বুথ চালু করে।
এয়ারলাইন্সগুলো জানিয়েছিল, সৌদিগামী যাত্রীদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে করোনা নেগেটিভ রিপোর্টসহ বিমানবন্দরে আসতে হবে।  

যাত্রীদের কোভিড-১৯ নেগেটিভ ফলাফলের ৬টি কপি সঙ্গে রাখতে হবে। ৪৮ ঘণ্টার সময় গণনা শুরু হবে নমুনা সংগ্রহের সময় থেকে। যাত্রীদের সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারি করা কোভিড-১৯ স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিয়ন্ত্রণ ও পদক্ষেপগুলো মেনে সৌদি আরবে প্রবেশ করতে হবে।

বিমানে বোর্ডিংয়ের আগে যাত্রীদের অবশ্যই সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত ফরম পূরণ করে স্বাক্ষর করতে হবে। সৌদি বিমানবন্দরে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে বিমানবন্দর স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে পূরণ ও স্বাক্ষর করা ফর্মটি জমা দিতে হবে। নির্দেশাবলী অমান্য করলে সিভিল এভিয়েশন আইনের ১৬৩ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী বড় অঙ্কের জরিমানা আরোপিত হবে।

এ বিষয়ে সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্সের কোনো কর্মকর্তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সম্প্রতি সৌদি সরকার ইকামার মেয়াদ ২৪ দিন বাড়ানোয় দেশটিতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের ফেরা নিয়ে সৃষ্ট জটিলতা নিরসন হয়। এরমধ্যে করোনা পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে নতুন করে ভোগান্তিতে পড়েছেন বিদেশগামী শ্রমিকরা। সংশ্লিষ্টদের কাছে এর একটি সুষ্ঠু সুরাহা চাচ্ছেন বঞ্চিত এই ৩২ জন সৌদি প্রবাসী।

আরও পড়ুন : সৌদি আরবে যেতে টিকিট সংকট হবে না: প্রতিমন্ত্রী

কেএফ/পি