logo
  • ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭

থানায় পিটিয়ে হত্যা: তিন পুলিশের যাবজ্জীবন

  আরটিভি নিউজ

|  ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪:১৩ | আপডেট : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:৩৬
Three people, including two SIs, were sentenced to life in police custody for killing Johnny
আদালত
পুলিশ হেফাজতে জনি হত্যার রায়ে এসআই জাহিদসহ তিনজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বাকি দুইজনকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করেন। নির্যাতন এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনের এটি প্রথম রায়।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত অন্য আসামিরা হলেন-পল্লবী থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) রাশেদুল, এএসআই কামরুজ্জামান মিন্টু। সাত বছর কারাদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন-সোর্স সুমন ও রাশেদ।

২০১৩ সালের ‘নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু নিবারণ আইন’ বেশ কয়েক বছর ধরেই বাতিল চাওয়া হচ্ছিল পুলিশের পক্ষ থেকে। আইনটি পাস হওয়ার সাত বছর পর এ আইনে প্রথম রায় হয়।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে গত ২৪ আগস্ট ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ রায়ের এ দিন ধার্য করেন। তার আগে গত ৯ ফেব্রুয়ারি এ মামলার আসামিরা আত্মপক্ষ সমর্থন করে বক্তব্য রাখেন। এরপর গত ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে এ মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হয়। করোনা পরিস্থিতির কারণে বেশকিছু দিন যুক্তিতর্ক বন্ধ ছিল। আগস্ট মাসে নিয়মিত আদালতের কার্যক্রম আবার শুরু হলে গত ২৪ আগস্ট এ মামলার যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ হয়।

ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল বলেন, আমরা রাষ্ট্রপক্ষে এ আসামিদের বিরুদ্ধে যাবতীয় সাক্ষ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করেছি। আশা করছি, আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে।  

অপরদিকে এ মামলার আসামিপক্ষে আইনজীবী ফারুক আহাম্মদ বলেন, আসামিরা রাষ্ট্রীয় দায়িত্বপালন করছিলেন। জনি হৃদরোগে মারা গেছেন বলে ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে এসেছে। এখানে নির্যাতনের ঘটনা ঘটেনি। আমরা আশা করছি, আসামিরা এ মামলায় খালাস পাবেন।  

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি মিরপুর-১১ নম্বর সেক্টরে স্থানীয় সাদেকের ছেলের গায়ে হলুদ অনুষ্ঠান চলাকালে পুলিশের সোর্স সুমন মেয়েদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করেন। এ সময় জনি ও তার ভাই সুমনকে চলে যেতে বলেন। সুমন চলে গেলেও পরদিন এসে আবার আগের মতো আচরণ করতে থাকেন। তখন জনি ও তার ভাই তাকে চলে যেতে বললে সুমন পু্লিশকে ফোন করে তাদের ধরে নিয়ে যান। তাদের নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকার লোকজন ধাওয়া দিলে পুলিশ গুলি ছোড়ে।

পরে থানায় নিয়ে জনিকে নির্যাতন করা হয়। একপর্যায়ে জনির অবস্থা খারাপ হলে ন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে অবস্থা আরও খারাপ হওয়ায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওই ঘটনায় ২০১৪ সালের ৭ আগস্ট ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে নির্যাতন ও পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউর রহমানসহ আটজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন নিহত জনির ছোট ভাই ইমতিয়াজ হোসেন রকি।

২০১৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর হাকিম মারুফ হোসেন পাঁচজনকে অভিযুক্ত এবং পাঁচজনকে অব্যাহতির সুপারিশ করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। তদন্তকালে পুলিশের এএসআই রাশেদুল ও কামরুজ্জামান মিন্টুকে নতুন করে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

২০১৬ সালের ১৭ এপ্রিল পল্লবী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদ, এএসআই রাশেদুল, এএসআই কামরুজ্জামান মিন্টু, সোর্স সুমন ও রাশেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা।

জিএ/এসএস 

RTVPLUS
bangal
corona
দেশ আক্রান্ত সুস্থ মৃত
বাংলাদেশ৩৬০৫৫৫ ২৭২০৭৩ ৫১৯৩
বিশ্ব ৩,৩৩,৪২,৯৬৫ ২,৪৬,৫৬,১৫৩ ১০,০২,৯৮৫
  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়
  • বাংলাদেশ এর সর্বশেষ
  • বাংলাদেশ এর পাঠক প্রিয়