• ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

এত আগে ভেবে লাভ নেই: মাশরাফি

আরটিভি অনলাইন রিপোর্ট
|  ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:০৪ | আপডেট : ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:২৯
বাংলাদেশ দলকে তিনি খুব সূক্ষ্মভাবে পরিচালনা করে আসছেন গত কয়েক বছর ধরে। কোথায় কিভাবে খেলতে হবে, কোন অবস্থায় কাকে খেলালে ভালো হবে সেটা তার ভালোমতোই জানা। এসবের প্রমাণ অবশ্য অনেক আগেই দিয়েছেন ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

নিজের দীর্ঘ ক্যারিয়ারের শেষ দিকে এসে বাংলাদেশ দলটাকে যেভাবে গুছিয়ে এনেছেন তাতে তিনি ভালো কিছুর আশা করতেই পারেন এবারের এশিয়া কাপে। ভালো কিছুর আশা ঠিকই করছেন তিনি তবে উচ্চাশা নয় মোটেও।

এশিয়া কাপকে সামনে রেখে গত কয়েকদিন ধরে প্রধান কোচ স্টিভ রোডসের অধীনে কঠোর অনুশীলন করে আসছিল আসন্ন এশিয়া কাপের জন্য ঘোষিত দলটি।

আজ বৃহস্পতিবার ছিল অনুশীলনের শেষ দিন। অনুশীলন শেষে গত কয়েকদিনের প্রস্তুতি আর আসন্ন এশিয়া কাপের ভাবনা নিয়ে কথা বলেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা আর প্রধান কোচ স্টিভ রোডস।

প্রথমেই উঠে আসে সাকিবের ফিটনেস প্রসঙ্গে। বাংলাদেশ দলের এই অন্যতম খেলোয়াড় কতটা ফিট এবং তিনি কতটা দিতে পারবেন প্রস্তুতি ছাড়া।

এমন প্রশ্নে মাশরাফি বলেন, সবশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজেও সাকিব খেলেছে, ব্যাটিংয়ের ব্যপারে সবথেকে ভাল বুঝতে পারবে ও।  কিন্তু সব মিলিয়ে যদি ওর পারফরম্যান্স দেখেন, আমাদের জন্য মানে দলের জেতার জন্য অনেক ইউজফুল ছিল। আমার মনে হয় যে ও ওতটুক সুস্থ থাকলেই যথেষ্ট। আর অবশ্যই সিদ্ধান্ত তো সাকিবের নিজের। এখানে কারও কোনও হাত নাই। সে যখন খেলবে সর্বোচ্চটা দিবে।

------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : শ্রীলঙ্কার এশিয়া কাপ দলে চমক
------------------------------------------------------------------

দল থেকে কে বাদ পড়েছে বা কে থাকলো এ নিয়ে এখন আর ভাবতে চান না বাংলাদেশ অধিনায়ক। এখন শুধুই সামনে দেখার পালা।

এমন প্রসঙ্গে অধিনায়ক বলেন, টুর্নামেন্ট খেলতে যাওয়ার আগে কোনও রকম বিতর্ক চাচ্ছি না। যেটাই হোক আমাদের যেটা আছে সেটা নিয়েই ইনশাআল্লাহ ভালো খেলতে পারি এই বিশ্বাস নিয়ে যাওয়াটা খুব জরুরী। আমি আশা করি দলে যারা আছে তারাই যথেষ্ট।

ঘরের মাঠে শেষ দুইবার ফাইনালে উঠেও চ্যাম্পিয়ন হবার স্বপ্ন পূরণ হয়নি বাংলাদেশের। এবারের মিশনটা নিশ্চয় আরও কঠিন হবে মরুর বুকে। তাছাড়া গত ২৩ বছরে আরব আমিরাতে কোনও ম্যাচ খেলেনি বাংলাদেশ। এমন সমীকরণে কি প্রত্যাশা বাংলাদেশ অধিনায়কের?

মাশরাফির সোজা কথা, এত আগে থেকে ভেবে কোনও লাভ নেই। আগে দুইবার-তিনবার রানার আপ যেটাই হোক সেসব কিছু ম্যটার করবে না। ম্যাটার করবে প্রথম ম্যাচ। এবারের ফরম্যাটটাও অন্যরকম। দুটা দল বাড়ার জন্য আগে নক-আউট খেলতে হবে এরপর আবার সবার সঙ্গে খেলতে হবে। একটু অন্যভাবে সাজানো এবারের ফরম্যাটটা। মূল কথা হচ্ছে প্রথম ম্যচটা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম ম্যচটা যদি ভালো খেলতে পারি তাহলে প্রেশার অনেক কমে যাবে।

তবে তিনি মানছেন এবারের এশিয়া কাপ অন্যসব আসরের চেয়ে কিছুটা কঠিন হবে।

'প্রত্যেকটা খেলাই কঠিন। আগে যেগুলো খেলেছি সেগুলাও কঠিন ছিল। এবারেরটাও অবশ্যই কঠিন হবে কেন না, সিচুয়েশনও অনেক কঠিন। আমার বিশ্বাস যে অনেক খারাপ সিচুয়েশনেও আমরা ভালো খেলেছি। আর ওখানে আমরা টিম হিসেবেও কখনও খেলিনি। এসব ইস্যু না, ইস্যু আমরা শ্রীলঙ্কার সঙ্গে কেমন খেলছি। আমার কাছে মনে হয় ১৫ তারিখটাই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

------------------------------------------------------------------
আরও পড়ুন : সামর্থ্যের শতভাগ দিতে চাই
------------------------------------------------------------------

১৫ সেপ্টেম্বর প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কা বাধা পার হলেই পরের ম্যাচ আফগানিস্তানের বিপক্ষে। বাংলাদেশ অধিনায়ক সমীহ করছেন আফগানিস্তানকেও।

ভারতের মাটিতে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে আফগানিস্তানের কাছে হোয়াইটওয়াশ। ভয়টা বিশেষ করে আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খানের ঘূর্ণিতে।

গত সিরিজে যতটা ভয় ছিল তামিম-সাকিবদের সেই ভয় থেকে বেরোনোরও পথও বাতলে দিলেন অধিনায়ক নিজে।

'রশিদ খান নিঃসন্দেহে বিশ্বমানের বোলার। কিন্তু দুইটা দুই ফরম্যাটের।  টি-টোয়েন্টিতে এক্সট্রা শর্টস খেলার প্রবণতা বেশি বা রান করতে হয় দ্রুত, এজন্যই মূলত তার বল খেলা কঠিন হয়ে পড়ে। ওয়ানডে ক্রিকেটে হয়তো বা তাকে দুই-তিন ওভার দেখার সময় পাবে তবে তার লেগ স্পিন বা গুগলি যেটাই আছে দ্রুত পিক করাটা খুব জরুরী। যারা পিক করবে আমার বিশ্বাস, তাদের খুব বেশি সমস্যা হবেনা। রশিদ খানের বল খেলতে যে কেউই চিন্তা করে তবে তার আগে আমি মনে করি শ্রীলঙ্কার যেসব স্পিনার আর পেস বোলার আছে তাদের ঠিকমতো খেলতে পারলে রশিদ, মুজিব, নবীদের সামলানো করা সহজ হয়ে যাবে। কিন্তু শ্রীলঙ্কার সাথে খারাপ খেলে ফেললে তাদের সামনে আরও কঠিন হয়ে যাবে খেলা।

আগামী ৯ সেপ্টেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাতের উদ্দেশে রওয়ানা করবে বাংলাদেশ ওয়ানডে দল। এরপর ১৫ তারিখে এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে টাইগারদের এশিয়া কাপ মিশন।

আরও পড়ুন :

এমআর/এমকে

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়