মেসি-রোনালদোর পার্থক্য তুলে ধরলেন তেভেজ

প্রকাশ | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৫:০৬ | আপডেট: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৬:৩০

স্পোর্টস ডেস্ক, আরটিভি অনলাইন

২০০৪ সালে আর্জেন্টিনার জার্সিতে অভিষেক হবার পর ৭৬টি ম্যাচে মাঠে নেমেছেন। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, ম্যানচেস্টার সিটি ও জুভেন্টাসের মতো বড় বড় দলের সঙ্গে নিজের নাম লিখিয়েছেন। বর্তমানে স্বদেশি ক্লাব বকো জুনির্য়সের হয়ে মাঠ মাতাচ্ছেন কার্লস তেভেজ। ক্যারিয়ারে বর্তমান যুগের সেরা দুই ফুটবলার লিওনেল মেসি ও ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোকে কে খুব কাছ থেকে দেখেছেন ৩৪ বছর বয়সী এই তারকা। ফুটবলের এই দুই বিস্ময়ের মধ্যে পার্থক্য তুলে ধরেছেন এই স্ট্রাইকার।

ম্যানইউ ও রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে মোট পাঁচবার ব্যালন ডি’অর জয় করেছেন রোনালদো। বর্তমানে নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়ে জুভেন্টাসের হয়ে খেলছেন পর্তুগাল অধিনায়ক। 

অন্যদিকে ক্যারিয়ারের শুরু থেকে এই পর্যন্ত বার্সেলোনার সঙ্গে রয়েছেন মেসি। সিআর সেভেনের মতোই সমান সংখ্যক ব্যালন ডি’অর শিরোপায় নিজের নাম জড়িয়েছেন আর্জেন্টিনার এই মহাতারকা। 

সম্প্রতি স্বদেশী গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছেন তেভেজ। এসময় মেসি-রোনালদোকে নিয়ে মুখ খুলেছেন এই আর্জেন্টাইন। 

জাতীয় দলের সতীর্থকে নিয়ে তিনি বলেন, ‘অনুশীলনের সময় আমি কখনও মেসিকে জিম করতে দেখিনি। তার সব কিছুই প্রাকৃতিক। তবে তাকে পেনাল্টি শুটের জন্য ট্রেনিং করতে দেখেছি। প্রথমে তিনি সেগুলোতে পারদর্শী ছিলেন না। এখন তো কর্নার কিকও করেন’। 
-------------------------------------------------------
আরও পড়ুন  : দিবালার সামনেই ‘দ্বন্দ্ব’ নিয়ে মুখ খুললেন কোচ
-------------------------------------------------------

২০০৭ থেকে দুই বছর রোনালদোর সঙ্গে ওল্ডট্রাফোর্ডের ড্রেসিং রুম শেয়ার করেছেন এল এপাচে খ্যাত এই তারকা। তেভেজ বলেন, ‘ক্রিশ্চিয়ানোর অনুশীলনের অন্যতম প্রধান বিষয় ছিল জিম। কারণ এটার প্রতি তার প্রবল আকর্ষণ রয়েছে। সে সব সময় সব কিছুতে সেরা হতে চাইতো। এমনকি প্রত্যেকদিন সবার আগেই সে অনুশীলনে পৌঁছে যেতেন’।

সেসময়কার স্মৃতি মনে করে তিনি আরও বলেন, ‘অনুশীলন যদি সকাল ৯টায় শুরু হতো তাহলে আমি এক ঘণ্টা আগে সেখানে পৌঁছাতাম। গিয়ে দেখতাম সেখানে তিনি (রোনালদো) আগে থেকেই উপস্থিত’।

‘সাড়ে সাতটায় পৌঁছানোর পরও গিয়ে দেখতে তিনি সেখানে রয়েছেন’। যোগ করেন তেভেজ।

রেড ডেভিলসদের হয়ে ৬৩টি ম্যাচে ১৯ গোল দেয়া এই ফরোয়ার্ড আরও বলেন, ‘আমি তখন নিজেকে প্রশ্ন করতাম, কবে এই লোককে পেছনে ফেলতে পারবো। একদিন আমি ভোর ছয়টায় সেখানে পৌঁছালাম। গিয়ে দেখি সে উপস্থিত! ঘুম ঘুম ভাব, তবু সেখানে উপস্থিত’। 

আরও পড়ুন  : 

ওয়াই/এসএস